Sunday, December 5, 2021
HomeনিউজKYC-র আপডেটঃ করার নাম করে অনলাইন প্রতারণা‌, আড়াই লক্ষ খোয়ালেন পূর্ব রেলের...
Advertisement

KYC-র আপডেটঃ করার নাম করে অনলাইন প্রতারণা‌, আড়াই লক্ষ খোয়ালেন পূর্ব রেলের অবসরপ্রাপ্ত আধিকারিক

Advertisement

Advertisement

খড়গপুর ২৪×৭: অনলাইন প্রতারণা শিকার এক ব্যক্তি। কেওয়াইসির আপডেট করার নাম করে প্রায় আড়াই লক্ষ টাকা অ্যাকাউন্ট থেকে তুলে নেয় প্রতারকরা। পূর্ব রেলের এক অবসরপ্রাপ্ত আধিকারিক সুশান্ত দে-‌র অভিযোগ, একটি মোবাইল সংস্থার নাম করে তাঁকে ফোন করে বলা হয়, কেওয়াইসি সংক্রান্ত তথ্য আপডেট না করলে প্রিপেড মোবাইলে আর রিচার্জ করা যাবে না। তার কেওয়াইসি আপডেট করার জন্য একটি বিশেষ অ্যাপও তাঁকে ডাউনলোড করতে বলা হয়। তারপর ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে অনলাইনে রিচার্জ করতে বলা হয়। তারপরই ওই ব্যক্তি ডেবিট কার্ডের তথ্য ওই অ্যাপে দিলে তিনি দেখেন, তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তোলার এসএমএস আসতে শুরু করেছে। কয়েক মিনিটের মধ্যে মোট পাঁচ বার তাঁর দুই অ্যাকাউন্ট থেকে মোট ২ লক্ষ ৪৮ হাজার ৮৮৯ টাকা তুলে নেওয়া হয়। গোটা ঘটনাটি বরাহনগর থানা এবং লালবাজারে কলকাতা পুলিশের ব্যাঙ্ক জালিয়াতি দমন শাখায় অভিযোগ জানিয়েছেন ওই ব্যক্তি। তাঁর বক্তব্য, গত ১১ ফেব্রুয়ারি দুপুর ২টো নাগাদ ৯৩৩৯২১৪২৭২ নম্বর থেকে একটি ফোন আসে তাঁর ফোনে। ট্রু কলারে নম্বরটি একটি মোবাইল সংস্থার কাস্টমার কেয়ার সার্ভিসের নম্বর হিসেবে দেখিয়েছিল বলে জানান সুশান্তবাবু। তাঁকে বলা হয়, তাঁর নম্বরে কেওয়াইসি সংক্রান্ত তথ্য আপডেটের প্রয়োজন রয়েছে। তারপর তাঁকে একটি কুইক সাপোর্ট অ্যাপ ডাউনলোড করতে বলা হয়।

- Advertisement -
Advertisement
- Advertisement -

তিনি ওই অ্যাপ ডাউনলোড করলে তাঁকে নিজের মোবাইলের একটি অ্যাপ ব্যবহার করে ১০ টাকা রিচার্জ করতে বলা হয়। সুশান্তবাবু ডেবিট কার্ড ব্যবহার করে ১০ টাকা রিচার্জ করতেই শুরু হয় সমস্যা। পনের ওপারে বসে থাকা ওই ব্যক্তির কথোপকথন চলাকালীন সুশান্তবাবু লক্ষ্য করেন, তাঁর মোবাইলে ওটিপির বার্তা আসছে। সেই সঙ্গে প্রতিবার ৪৯ হাজারের কিছু বেশি টাকা অ্যাকাউন্ট থেকে অন্য কোনও ব্যক্তির বেরিয়ে অন্য কারও মোবাইল ওয়ালেটে চলে যাচ্ছে। বিপদ বুঝে ফোন ছেড়ে দ্রুত নতুন অ্যাপটিকে ডিলিট করে দেন সুশান্তবাবু। তিনি দেখেন, প্রায় আড়াই লক্ষ টাকা অ্যাকাউন্ট থেকে ডেবিট হয়ে গিয়েছে।
লালবাজারের ব্যাঙ্ক জালিয়াতি দমন শাখার এক আধিকারিক জানান, সম্প্রতি অ্যাপের মাধ্যমে তথ্য হাতিয়ে প্রতারণার ঘটনা ঘটছে। এ ক্ষেত্রে প্রতারকদের বলা ওই অ্যাপ ডাউনলোড করতেই তাঁদের কাছে মোবাইলের মিরর ভার্সন দেখতে পান। অনেকটা স্ক্রিন শেয়ারের মতো। যার ফলে প্রতারকেরা নির্দিষ্ট অ্যাপের মাধ্যমে যে কোনও স্মার্টফোনকে নিজেদের ফোনের মতো ব্যবহার করতে পারে। অভিযুক্তদের হদিশ পেতে পুলিশ ইতিমধ্যেই দুটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের বিভিন্ন তথ্য খতিয়ে দেখছে। সাইবার ক্রাইম চক্রের খোঁজে ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

Advertisement

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!