অনুব্রত মন্ডলকে শোকজ করল নির্বাচন কমিশন

খড়গপুর ২৪×৭: নির্বাচনী প্রচারে ‘প্ররোচনামূলক মন্তব্য’ করে রেহাই পাননি তৃণমূলনেত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের প্রচারে যখন ২৪ ঘণ্টার জন্য নিষেধাজ্ঞা জারি করল কমিশন, তখন শোকজের মুখে পড়লেন অনুব্রত মণ্ডলও। আজ অর্থাৎ মঙ্গলবার রাত ১১টার মধ্যে শোকজের জবাব দিতে হবে তাঁকে। 

কখনও ‘চড়াম-চড়াম’, তো কখনও আবার ‘গুড়-বাতাস’। ভোট এলেই খবরের শিরোনাম চলে আসেন অনুব্রত মণ্ডল । বিরোধীরা বলেন, ভোটের সময়ে এইসব কথা বলে তিনি নাকি আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি করার চেষ্টা করেন! বীরভূমে তৃণমূলের জেলা সভাপতিকে এর আগেও নজরবন্দি করে রেখেছিল কমিশন। রাজ্যের পঞ্চম দফা ভোটের আগে এবার শোকজ করা হল অনুব্রতকে। কেন?

একুশের ভোটে বাংলার জয়ের লক্ষ্য়ে সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপিয়েছে বিজেপি। প্রচারে ঘন ঘন রাজ্যে আসছেন অমিত শাহ, জেপি নাড্ডার মতোর দলের সর্বভারতীয় নেতারা। এমনকী, বাদ যাচ্ছেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। বীরভূমেও প্রভাব বেড়েছে গেরুয়াশিবিরের। ভোটের আগে পাল্টা নিদান হেঁকেছেন অনুব্রত। এবার তাঁর স্লোগান, ‘বিজেপিকে ঠেঙিয়ে পগার পার’। 

জানা গিয়েছে, অনুব্রত মণ্ডলের এই নিদানকে ‘প্ররোচনামূলক’ দাবিকে অভিযোগ জমা পড়েছে কমিশনের ওয়েবসাইটে। সেই অভিযোগে প্রেক্ষিতেই বীরভূমের এই তৃণমূল নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিস ধরাল কমিশন। যাঁকে শোকজ করা হল, তাঁর কী প্রতিক্রিয়া? এদিন মঙ্গলকোটে নির্বাচনী জনসভায় অনুব্রত মণ্ডল বলেন, ‘পগার পার-র মানে দেখতে হবে। আগে ডিক্সনারি খুলে মানে দেখুক, তারপর বলব’। নির্বাচন কমিশন ‘অন্ধ ধৃতরাষ্ট্র’ বলে কটাক্ষও করেন তিনি।