Thursday, October 6, 2022
Homeজেলাবীরভূমস্ত্রীকে কুপিয়ে খুন করে,কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা স্বামীর
Advertisement

স্ত্রীকে কুপিয়ে খুন করে,কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা স্বামীর

Advertisement

Advertisement

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: হাঁসুয়া দিয়ে কুপিয়ে স্ত্রীকে খুন। তারপরেই কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা স্বামীর। রবিবার সকালে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে ময়ূরেশ্বরে। গুরুতর অবস্থায় সিউড়ি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন স্বামী। মাকে খুনের অভিযোগে বাবার শাস্তি চেয়ে ময়ূরেশ্বর থানায় অভিযোগ করেছেন ছেলে।

- Advertisement -
- Advertisement -

ময়ূরেশ্বরের ঢেকা পঞ্চায়েতের সেলাহাট গ্রামের বাসিন্দা অচিন্ত্য ভল্লা (৬২)। তার স্ত্রী ছবি ভল্লা (৫৫)। দুই ছেলে বউমা নাতি নাতনিদের নিয়ে সংসার। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, স্ত্রীর সঙ্গে বনিবনা ছিল না স্বামীর। তা ঘিরে প্রায়শই দু’জনের মধ্যে বিবাদ লেগে থাকত। দুই ছেলে, বউমা মায়ের সমর্থনে থাকায় সংসারে একরকম একা থাকতেন অচিন্ত্যবাবু।

প্রতিবেশীরা জানান, ছেলেদের সঙ্গে পরামর্শ করে দু’দিন থেকে স্বামীকে খেতে দেননি ছবিদেবী। সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রবিবার সাত সকালে দু’জনের ঝগড়া শুরু হয়ে যায়। ঘরে থাকা মাঠের কাজে ব্যবহৃত হাঁসুয়া দিয়ে স্ত্রীকে লক্ষ্য করে মারতে যান স্বামী। ছবিদেবী হাত দিয়ে হাঁসুয়ার কোপ আটকাতে গেলে তাঁর হাতের আঙ্গুল কেটে যায়।

তারপরেও গলায় পরপর দুটি কোপ মারেন অচিন্ত্য ভল্লা। ছবিদেবীর চিৎকারে সকলে ছুটে আসেন। তাঁকে রক্তাক্ত অবস্থায় প্রথমে সাঁইথিয়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে পরে সেখান থেকে সিউড়ি সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়। হাসপাতালে আনার কিছুক্ষণের মধ্যেই মৃত্যু হয় ছবিদেবীর। এদিকে স্ত্রীর মৃত্যুর খবর শুনেই বাড়িতে রাখা কীটনাশক খেয়ে আত্মঘাতী হওয়ার চেষ্টা করে অচিন্ত্যবাবু।

তাঁকে গুরুতর অবস্থায় সিউড়ি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কেন স্ত্রীকে কুপিয়ে খুন করেছেন? সে বিষয়ে কিছু বলতে চান নি অচিন্ত্যবাবু। অন্যদিকে সিউড়ি মর্গে মায়ের মৃতদেহ রেখে অঝোরে কেঁদে চলছিলেন বড় ছেলে অনান্দ ভল্লা।

তিনি জানান, এদিন সকালে তিনি মাঠের কাজে ছিলেন। মাকে বাবা কোপ মেরেছে শুনেই ঘরে যান। কীভাবে ঘটেছে তিনি কিছু জানেন না। তবে মাকে খুনের জন্য বাবার বিরুদ্ধে ময়ূরেশ্বর থানায় অভিযোগ জানিয়েছেন তিনি।

Advertisement

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!