Saturday, May 28, 2022
Homeজেলাবীরভূমসাসপেন্ড থাকা তিন পড়ুয়াকে, তিন বছরের জন্য বহিস্কার করল বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ
Advertisement

সাসপেন্ড থাকা তিন পড়ুয়াকে, তিন বছরের জন্য বহিস্কার করল বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ

Advertisement

Advertisement

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: গত ছয় মাস ধরে সাসপেন্ড থাকা  বিশ্বভারতীর তিন পড়ুয়াকে তিন বছরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারই করার সিদ্ধান্ত নিল বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ!

- Advertisement -
Advertisement
- Advertisement -

সোমবার রাত্রে সাসপেন্ড থাকা তিন পড়ুয়া যথা অর্থনীতির বিভাগের ছাত্র এসএফআই নেতা সোমনাথ সৌ, সঙ্গীতভবনের হিন্দি শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের ছাত্রী এসএফআই নেত্রী রূপা চক্রবর্তী এবং অপর ছাত্রনেতা ফাল্গুনী পানের কাছে বিশ্বভারতীর প্রোক্টরের স্বাক্ষরিত চিঠি এসে পৌঁছেছে।

তাতে ‘শৃঙ্খলাভঙ্গ’ ও অর্থনীতি বিভাগে ‘ভাঙচূরে’র অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার উল্লেখ করে এই চরম শাস্তিদানের নিদান দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ঘটনা ঘিরে সমালোচনার ঝড় চরমে উঠেছে শান্তিনিকেতন ক্যাম্পাসে। খবর প্রকাশ্যে আসতেই স্তম্ভিত হয়েছে শিক্ষা মহল।

গত ৯জানুয়ারি ছাতিমতলায় শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদে শামিল  হয়েছিলেন পড়ুয়ারা। সেদিন ছাতিমতলায়  এক অনুষ্ঠানে যখন উপাচার্য উপস্থিত হয়েছিলেন তখন নির্দিষ্ট ও যুক্তিগ্রাহ্য কিছু দাবিদাওয়া নিয়ে শান্তিপূর্ণ অবস্থানে বসেছিলেন পড়ুয়ারা। পড়ুয়াদের কথা শোনা তো দূর সেদিন বরং রণংদেহি হয়ে উঠেছিল কর্তৃপক্ষ।

নিরাপত্তারক্ষীদের দিয়ে রীতিমত হেনস্তা করা হয়েছিল পড়ুয়াদের। তার প্রতিবাদে বিভিন্ন বিভাগে বিক্ষোভে শামিল হয়েছিলেন পড়ুয়ারা। সেই প্রতিবাদকে বিশ্বভারতীর সন্মানক্ষুন্নকারী ও কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধাচারণ করে শৃঙ্খলাভঙ্গ অভিযোগ এনেছিল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

অর্থনীতি বিভাগে ভাঙচুরের অভিযোগও আনা হয়েছিল পড়ুয়াদের বিরুদ্ধে। সেই অভিযোগে গঠন করা হয় তদন্ত কমিটি। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১৪ জানুয়ারি সাসপেন্ড করা হয় তিন পড়ুয়াকে।

তারপরই শীতঘুমে চলে যাওয়া তদন্ত কমিটি আচমকা সক্রিয় হয়ে ওঠে। গত ১০ আগস্ট সাসপেন্ড থাকা তিন পড়ুয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে পাঠায়। তারপর এদিন সেই তদন্ত কমিটির রিপোর্ট প্রকাশ্যে এসেছে। সেই রিপোর্টের ভিত্তিতে তিন পড়ুয়ার বিরুদ্ধে কঠোরতম সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে কর্তৃপক্ষ।

পড়ুয়াদের বিরুদ্ধে আনা সমস্ত অভিযোগ সত্য বলে প্রমাণিত হয়েছে এবং ঘটনায় সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্যই তিন পড়ুয়ার বিরুদ্ধে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে তদন্ত কমিটির রিপোর্টে।এসএফআই নেতা সোমনাথ সৌ ক্ষোভের সাথে জানিয়েছেন, ‘‘উপাচার্য চরম প্রতিহিংসার নজির রেখেছেন। তবে পিছিয়ে আসার কোন জায়গা নেই। এর বিরুদ্ধে আইনি লড়াই যেমন হবে। ক্যাম্পাসেও হবে দূর্বার প্রতিবাদ।’’

Advertisement

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!