জলপাইগুড়ির মালবাজারে ১৬টি শকুনের মৃত্যু, চিন্তিত পরিবেশবিদরা

খড়গপুর ২৪×৭: মারা গেল ষোলোটি শকুন। অসুস্থ প্রায় আরও ২৪টি। ঘটনাটি ঘটেছে মালবাজারের ডামডিমে। মৃত গরুর মাংস খেয়েই শকুনের এই মৃত্যু এবং অসুস্থ হয়ে পড়া বলে জানা গিয়েছে।

শনিবার বিকেলে মালবাজার মহকুমার ডামডিম পঞ্চায়েতের খাগড়া বস্তির মাঠ থেকে বেশ কিছু মৃত এবং অসুস্থ শকুন উদ্ধার করে মালবাজার বন দপ্তর । রবিবার দুপুর পর্যন্ত সেখানে প্রায় ১৬টি শকুনের মৃত্যু হয়েছে। অসুস্থ হয়েছে ২৪টি শকুন। অসুস্থ শকুনগুলির চিকিৎসা চলছে রাজাভাত খাওয়া শকুন প্রজনন কেন্দ্রে। মালবাজার বন দপ্তরের আধিকারিক এবং কর্মীরা রবিবারও ঘটনাস্থল ঘুরে দেখে গিয়েছেন।

মালবাজার বন দপ্তরের রেঞ্জার দীপেন সুব্বা বলেন, শনিবার অনেক রাত পর্যন্ত খাগড়া বস্তির মাঠ থেকে শকুন উদ্ধারের কাজ হয়েছে। ১১টি শকুনের মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছিল। ২২টি অসুস্থ শকুন উদ্ধার করে রাজাভাতখাওয়া শকুন প্রজনন কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। নিয়ে যাওয়ার পথে আর দু’টি শকুনের মৃত্যু হয়েছিল। বাকিদের চিকিৎসা চলছে। রবিবার আরও একটি অসুস্থ শকুন উদ্ধার হয়েছে খাগড়া বস্তির মাঠ থেকে। সেটিকেও চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে রাজাভাতখাওয়ায়। এলাকা ঘুরে দেখা হচ্ছে, আরও অসুস্থ শকুন আছে কিনা।

জানা গিয়েছে, মৃত গরুর মাংস খেয়েই শকুনের মৃত্যু এবং অসুস্থ হয়ে পড়া। মৃত গরু থেকে নমুনা সংগ্রহও করা হয়। বন দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত গরুর মাংস এবং মৃত শকুনের ময়না তদন্তের পরে শকুনমৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। জানা গিয়েছে, শকুনগুলি হিমালয়ান গ্রিফন প্রজাতির।