Sunday, September 19, 2021
Homeজেলামুর্শিদাবাদবীরভূম থেকে মুর্শিদাবাদে পরকীয়া করতে এসে,বেধড়ক মার খেল যুবক

বীরভূম থেকে মুর্শিদাবাদে পরকীয়া করতে এসে,বেধড়ক মার খেল যুবক

- Advertisement -

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: বীরভূম থেকে মুর্শিদাবাদে পরকীয়া করতে এসে বাড়ির লোক এবং গ্রামবাসীদের হাতে ধরা পড়ে বেদম মার খেল যুবক। শেষ পর্যন্ত ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ এসে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় যুবককে উদ্ধার করে। মারধর করার ঘটনায় আটক করা হয়েছে। দুজন গ্রামবাসীকে।

সোমবার ঘটনাটি ঘটে মুর্শিদাবাদ জেলার বড়ঞা থানার ফতেপুর মাঝিপাড়া এলাকায়। এই ঘটনায় গ্রামজুড়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। তবে বীরভূমের মল্লারপুর থানা এলাকার সৌচ গ্রামের আদিবাসী যুবক প্রসেনজিৎ হাঁসদা জানিয়েছেন ,আমার সাথে ফতেপুর গ্রামের বধুর বহুদিনের সম্পর্ক। রবিবার আমাকে ফোনে ডাকে সেই মত আমি এসেছিলাম। আমি বিয়ে করতে চাই। যদিও দুই সন্তানের জননী ফতেপুর মাঝিপাড়া এলাকার বাসিন্দা জবা মাঝি জানিয়েছেন, প্রসেনজিৎ হাঁসদার কোন দোষ নেই। আমি ফোন করে ডেকেছিলাম রবিবার রাতে। আমি ওকে ভালোবাসি।

- Advertisement -

পুলিশ জানিয়েছে ,সোমবার সকালে আমরা খবর পাই ফতেপুর গ্রামের মাঝিপাড়া এলাকায় বীরভূমের মল্লারপুর থানা এলাকার এক যুবককে বেঁধে রাখা হয়েছে। সাথে ওই গ্রামের এক বধু কেউ বেঁধে রাখা হয়েছে। আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে গ্রামবাসীদের বুঝিয়ে ওদের বাঁধন মুক্ত করি।

এবং ওদের দুজনের মুচলেখা নিয়ে সমস্যার সমাধান করি। দুজনেই একে অপরকে বিয়ে করতে চাই। যেহেতু দুজনেই সাবালক তাই ওদের মতামতে যথেষ্ট। এছাড়া ওই যুবককে মারধর করার ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, বিবাহিত জবা মাঝি বর্তমানে দুই ছেলে নিয়ে বাবা মায়ের কাছে থাকেন। জবার পিতা মানগার হেমরম জানিয়েছেন, এর আগে চারবার দিয়ে দিয়েছিলাম। বর্তমানে মেয়ে শ্বশুরবাড়িতে থাকেনা আমার কাছেই থাকে। রবিবার রাতে হঠাৎ করে বৃষ্টির মধ্যেই দেখি এক যুবক মেয়ের ঘরে ঢুকেছে।আমরা সকলে মিলে ওই যুবককে রাতের মতো ঘরে তালা বন্ধ করে রাখি। সকালে প্রতিবেশীদের খবর দেওয়া হয়। পুলিশ আসে তারপর মীমাংসা হয়।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!