পাণ্ডবেশ্বরে বোমা ফেটে মৃত্যু তৃণমূল কর্মীর

খড়গপুর ২৪×৭: ভোটমুখী বাংলায় ফের বোমা ফেটে  মৃত্যুর ঘটনা ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল। এবার পশ্চিম বর্ধমান জেলার পাণ্ডবেশ্বর  বিধানসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত অন্ডালের জামবাদ বেনেডি  এলাকায় বোমা ফেটে মৃত্যু হল এক তৃণমূল কর্মীর। মৃতের নাম সরবন চৌধুরী। বয়স ৪০ বছর। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে। বোমা বাঁধার সময়ই বিপত্তি ঘটে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে। এই ঘটনায় তাঁকে খুনের চক্রান্তের অভিযোগ করেছেন পাণ্ডবেশ্বর বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী  জিতেন্দ্র তিওয়ারি। সবমিলিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়েছে পাণ্ডবেশ্বরে। সামগ্রিক ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে অন্ডাল থানার পুলিস।

জানা গিয়েছে, বুধবার গভীর রাতে জামবাদ বেনেডি এলাকায় বোমা বিস্ফোরণের ঘটনাটি ঘটে। বিজেপির  তরফে অভিযোগ, রাতের অন্ধকারে বাড়ির মধ্যে বোমা বাঁধার কাজ চলছিল। কয়েকজন সহযোগীর সঙ্গে বসে বোমা বাঁধছিলেন সরবন চৌধুরী নামে ওই ব্যক্তি। সেইসময়ই আচমকা বোমা ফেটে  যায়। যার জেরে তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

এই ঘটনায় পাণ্ডবেশ্বর  বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী জিতেন্দ্র তিওয়ারি  টুইট করে কড়া ভাষায় তোপ দেগেছেন রাজ্য সরকারের উদ্দেশে। তিনি দাবি করেছেন, “আমাকে খুনের জন্যই এই বোমা বাঁধা হচ্ছিল। পাণ্ডবেশ্বরে বুকে বসে চক্রান্ত করছিল দুষ্কৃতীরা। সেইসময়ই বোমা ফেটে এক তৃণমূল কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। রাজ্য সরকারকে অনুরোধ করব এই বোমা-গুলির রাজনীতি বন্ধ করতে।

যদিও তৃণমূলের তরফে সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে অন্ডাল থানার পুলিস। তবে কে বা কারা মৃত সরবন চৌধুরীর সঙ্গে ছিলেন, কাদের সঙ্গে বসে তিনি বোমা বাঁধছিলেন, তাঁদের এখনও কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। সহযোগীদের খোঁজে শুরু হয়েছে তল্লাশি। অন্যদিকে, বোমা বিস্ফোরণের জেরে বাড়িটি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনার জেরে আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়। প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে যে, বুধবার রাত ১ টা নাগাদ বিস্ফোরণের ঘটনাটি ঘটে। সঙ্গে সঙ্গেই গুরুতর আহত অবস্থায় রানিগঞ্জ বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় সরবন চৌধুরী নামে ওই তৃণমূল কর্মীকে। বৃহস্পতিবার সকালে সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়।