Thursday, December 2, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরহাসেনা-আসপিয়াদের তৈরি কালী প্রতিমা পুজো হয় দাসপুরের গ্রামে গ্রামে
Advertisement

হাসেনা-আসপিয়াদের তৈরি কালী প্রতিমা পুজো হয় দাসপুরের গ্রামে গ্রামে

Advertisement

Advertisement

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: দেশজুড়ে যখন সাম্প্রদায়িক হানাহানির প্রতিবাদে মুখর, তখন সম্প্রীতির অনন্য নজির দেখা যাচ্ছে পশ্চিম মেদিনীপুরের দাসপুরে।

- Advertisement -
Advertisement
- Advertisement -

প্রতিমা ভেঙে ফেলা নয়, আয়রণ বিবি, হাসেনা, আসপিয়াদের তৈরি কালী প্রতিমা পুজিত হয় দাসপুরের গ্রামে গ্রামে। কালীপ্রতিমা গড়তে দ্বিধা হয় না হাসিনা, আসপিয়াদের। তাঁদের তৈরি মূর্তি দিয়ে পুজো করতে সংস্কারে বাধে না প্রশান্ত, বিকাশ, বিক্রম, সঞ্জীবদের।

বরং বছরের পর বছর ধরে এই সম্প্রীতির অনন্য নজির বহন করে আসছে পশ্চিম মেদিনীপুরের নাড়াজোল গ্রাম। কখনও প্রশ্নও ওঠে না মুসলিমের গড়া প্রতিমায় কেন পুজো করবেন হিন্দুরা।

বছরের পর বছর ধরে চলে আসছে এই রীতি। আসলে এঁরা চিত্রকর পরিবার। পট আঁকার কাজ করতেন। ধীরে ধীরে ছাঁচের বিভিন্ন দেবদেবীর মূর্তি তৈরি করছেন। পুরুষদের পাশাপাশি মূর্তি বানাচ্ছেন মহিলারাও। তবে এই মুর্তিতে কোনও কাঠ-খড় নেই। ছাঁচের মূর্তি। পুরোটাই মাটির।

উচ্চতা বড়জোর দু-ফুট। আগে মূর্তি তৈরির পর ভ্যানে চাপিয়ে গ্রামে গ্রামে ঘুরে বেড়াতেন বিক্রির জন্য। এখন আর কোথাও যেতে হয়না। বাড়িতে বসেই অর্ডার পাচ্ছেন। কালী পুজোর আগে প্রতিমা নিতে খরিদ্দাররাই আসেন হাসেনা, আসপিয়াদের বাড়িতে।

মুসলিম মহিলাদের তৈরি কালী প্রতিমায় পুজো করার ব্যাপারে কুণ্ঠা নেই কারও। আশপাশের গ্রাম থেকে প্রতিমা কিনতে আসেন লোকে। কেশপুরের বাঁশগেড়িয়ার সুকুমার দোলই বলেন, ‘আমাদের মতো যারা ছোট প্রতিমা পুজো করেন, তারা এখানেই আসেন। যেমন আমরা প্রায় প্রতি বছরই এঁদের তৈরি মূর্তি কিনে নিয়ে যায়।’

ডেবরার বৈকুন্ঠপুর গ্রামের তারক মাইতি, ঘাটালের দেওয়ানচকের সঞ্জীব সামন্ত’রা বলেন, আমরা উদ্দেশ্য কালী পুজো করা। আনন্দ উপভোগ করা। প্রতিমা কে তৈরি করেছে তা দেখে লাভ কী? তাছাড়া ওরা তো শিল্পী। শিল্পীর আবার জাত হয় নাকি!’

শিল্পী হাসেনা, আসপিয়া’রা বলেন, ‘আমার বাপ-ঠাকুরদাও এই কাজ করেছেন। বাবার বয়স হয়েছে। এখন আমরা কাজ শিখেছি। একশো’র বেশি প্রতিমা তৈরি করেছি। আশা করছি, সবই বিক্রি হয়ে যাবে। যেমন নিষ্ঠা ভরে হাসেনারা মূর্তি গড়েন, তেমনই নিষ্ঠা ভরে পুজো করেন গ্রামের উদ্যোক্তারা। সংস্কার গ্রাস করতে পারেনি প্রশান্ত, বিকাশ, সঞ্জীবদের।

 

Advertisement

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!