Sunday, December 5, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরখড়গপুরে নাবালিকা ধর্ষণ কাণ্ডে,এবার পুলিশের নজরে পাম্প অপারেটরও
Advertisement

খড়গপুরে নাবালিকা ধর্ষণ কাণ্ডে,এবার পুলিশের নজরে পাম্প অপারেটরও

Advertisement

Advertisement

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: মূক ও বধির নাবালিকাকে ধর্ষণের ঘটনায় পাম্প অপারেটরের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে শুরু করেছে পুলিশ। ঘটনায় ধৃত যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করে পাম্প অপারেটরের খোঁজখবর নেওয়ার কাজ শুরু করেছে খড়গপুর টাউন থানার পুলিশ।

- Advertisement -
Advertisement
- Advertisement -

এদিকে পাশাপাশি রেল কর্তৃপক্ষ পৃথকভাবে তদন্ত শুরু করেছে। কারন যে পাম্পের ভেতরে পনেরো বছরের মূক ও বধির নাবালিকাকে ধর্ষণ করা হয়েছে সেটি রেলের অধীন। জানা গিয়েছে এখানে দুজন অপারেটর নিযুক্ত রয়েছেন। এই পাম্প থেকে রেলের একটি কমিউনিটি হল সহ কুড়ি নম্বর ওয়ার্ডের ওল্ড সেটেলমেন্ট এলাকায় জল সরবরাহ করা হয়।

সোমবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে আরপিএফের একটি দল। তাঁরা পাম্প লাগোয়া একটি পরিবারের কাছে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহের জন্য যায়। যদিও খুব বিশেষ কিছু আরপিএফের দল জানতে পারে নি। কারন পরিবারটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে তাঁরা ঘটনা সম্পর্কে কিছু জানেন না।

এমনকি ঘটনার সময় তাঁরা কিছু টের পান নি বলে জানিয়েছেন। তবে এই ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রেল আধিকারিক জানিয়েছেন ঘটনাটি সম্পর্কে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। আর দেখা হচ্ছে পাম্পঘরের চাবি একজন বহিরাগতের কাছে কিভাবে পৌঁছাল। তবে জানা গিয়েছে ধর্ষণে ধৃত যুবক কে অরবিন্দের সাথে একজন পাম্প অপারেটরের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে।

রেলের নিযুক্ত পাম্প অপারেটর এই চাবি অভিযুক্তের কাছে দিয়ে রাখতেন। আর নির্দিষ্ট সময় অনুযায়ী পাম্পটি চালিয়ে দিত ধৃত যুবক। রেলের নিযুক্ত পাম্প অপারেটর বেশিরভাগ দিনই আসতেন না বলে জানা গিয়েছে। তবে শুধু এই পাম্পে নয়। খড়গপুর পুরসভার কিছু ওয়ার্ডেও বোরিং অপারেটররা অন্য আরেক জনকে চাবি দিয়ে রেখেছেন।

এই বহিরাগতরা পাম্প চালায়। আর মাস শেষে নিজেদের বেতন থেকে সামান্য কিছু টাকা বহিরাগতদের হাতে তুলে দেন এঁরা। এই ব্যবস্থা রেল ও পুরসভার বেশকিছু পাম্পে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। আর তারই সুযোগ নিয়েছিল ধৃত যুবক। শনিবার দুপুরে নাবালিকাকে প্রলোভন দেখিয়ে পাম্প হাউসে নিয়ে যায়।

তারপর তার হাত পা বেঁধে রাত পর্যন্ত দফায় দফায় ধর্ষণ করে। এই ব্যাপারে রেলের খড়গপুর ডিভিশনের সিনিয়র ডিসিএম তথা জনসংযোগ আধিকারিক গজরাজ সিং চরন জানালেন সবকিছু খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এখনই কিছু বলার সময় হয়নি। তবে পুলিশ এই ঘটনার তদন্তে নেমে এই পাম্প হাউসের চাবি কি করে এই যুবকের হাতে পৌঁছালো সেটি খতিয়ে দেখতে শুরু করেছে।

এই ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খড়গপুর) রানা মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন মূল অভিযুক্ত ধরা পড়লেও পাম্পের চাবি এই যুবকের হাতে পৌঁছানোর রহস্য উন্মোচন করার চেষ্টা করা হচ্ছে। তিনি আশা প্রকাশ করেছেন শীঘ্রই সবকিছু স্পষ্ট হয়ে যাবে বলে। এদিকে সোমবার নাবালিকাকে জেলা আদালতে পাঠানো হয়। সেখানে তার গোপন জবানবন্দী হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

Advertisement

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!