Thursday, December 2, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরদীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান! শুরু হতে চলেছে ডেবরা থানার ট্যাবাগেড়িয়ায় কংসাবতী নদীর উপর...
Advertisement

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান! শুরু হতে চলেছে ডেবরা থানার ট্যাবাগেড়িয়ায় কংসাবতী নদীর উপর পাকা সেতু নির্মাণের কাজ

Advertisement

Advertisement

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: অবশেষে দীর্ঘ সাত দশকের প্রতীক্ষার অবসান। শুরু হতে চলেছে ডেবরা থানার ট্যাবাগেড়িয়ায় কংসাবতী নদীর উপর পাকা সেতু নির্মাণের কাজ। সোমবার থেকে এই সেতু নির্মাণের জন্য সমীক্ষার কাজ শুরু হবে বলে জানা গিয়েছে। লাগবে প্রায় কুড়ি দিন।

- Advertisement -
Advertisement
- Advertisement -

এদিকে এই খবরে রীতিমতো উৎসবের আমেজ ডেবরা থানার চারটি গ্ৰাম পঞ্চায়েত এলাকায়। এই চারটি গ্ৰাম পঞ্চায়েত হল ভবানীপুর, ভরতপুর, মলিহাটি ও গোলগ্ৰাম। খুশী এই সেতু নির্মাণের দাবি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করা দ্বীপান্তর মুক্তি সংগ্রাম কমিটি। রবিবার এই সমীক্ষার কাজ শুরুর আগে এলাকায় যাবেন ডেবরার বিধায়ক তথা রাজ্যের কারিগরি শিক্ষা দফতরের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী হুমায়ূন কবির।

তিনি জানিয়েছেন ” দীর্ঘদিনের দাবি ছিল এই সেতু নির্মাণের। সেটি শীঘ্রই শুরু হবে। তারজন্য প্রাথমিক স্তরের কাজ সমীক্ষা শুরু হবে। লাগবে পনেরো থেকে কুড়ি দিন সময়। তারপর আরও কিছু প্রক্রিয়া রয়েছে। সেগুলি শেষ হলে সেতু নির্মাণের কাজ শুরু হবে। তারজন্য কিছুটা সময় লাগবে।” স্বাধীনতার পর ৭৪ বছর পার হয়ে গিয়েছে। বহুবার দাবি করলেও কংসাবতী নদীর উপর এই এলাকায় পাকা সেতু নির্মাণ করা হয়নি।

ফলে বর্ষার সময় ছয় মাস জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নৌকায় পারাপার করতে হয়। দুই মাস অস্থায়ী বাঁশের সাঁকো দিয়ে পারাপার করতে হয়। আর বাকি চার মাস শুখা মরসুমে নদীর এপার থেকে ওপার পর্যন্ত অস্থায়ীভাবে তৈরি করা মোরাম রাস্তা দিয়ে পারাপার করতে হয়। আর নদীতে জল বেশি থাকলে খেয়া পারাপার বন্ধ রাখতে হয়।

তখন নদীর অপর পাড়ে ভবানীপুর, ভরতপুর, মলিহাটি ও গোলগ্ৰাম গ্ৰাম পঞ্চায়েত এলাকার হাজার হাজার মানুষকে ব্যাপক সমস্যায় পড়তে হয়। ডেবরা থানার সত্যপুর গ্ৰাম পঞ্চায়েতের ট্যাবাগেড়িয়া থেকে অপর পাড়ে ভরতপুর গ্ৰাম পঞ্চায়েতের মকারিমপুর এলাকা পর্যন্ত এই অস্থায়ী কাঠের সেতুর দৈর্ঘ্য প্রায় তিনশো ফুট। এই ব্যাপারে দ্বীপান্তর মুক্তি সংগ্ৰাম কমিটির সম্পাদক গৌতম মাজি বললেন ” নদী লাগোয়া চারটি গ্ৰাম পঞ্চায়েত এলাকায় খুশীর আমেজ।

গত ৭৪ বছর ধরে ট্যাবাগেড়িয়া থেকে মকারিমপুর পর্যন্ত নদীর উপর একটি পাকা সেতুর দাবিতে বহু আন্দোলন হয়েছে। এবারে সেই দাবি পূরণ হতে চলেছে। আর সেটি হতে চলেছে স্বাধীনতার পর ডেবরা থেকে প্রথম রাজ্য মন্ত্রীসভার সদস্য হুমায়ূন কবিরের হাত ধরে। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। আর সেই প্রতিশ্রুতি রেখেছেন। আমরা সকলেই খুশী।”

Advertisement

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!