Sunday, September 26, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরফুটবল একাডেমি এগিয়ে চলুক সবার সহায়তায়।

ফুটবল একাডেমি এগিয়ে চলুক সবার সহায়তায়।

- Advertisement -

খড়গপুর২৪×৭(সবং,প:মেদিনীপুর):- সবংয়ের গেটওয়ে তেমাথানী । চারটিগুরুত্বপূর্ণ পথের সংযোগস্থল হওয়াতে জনঘনত্ব বাড়ছে হু হু করে । নেই কোন সর্বজনীন খেলার মাঠ , নেই খেলার বিশেষ কোন পরিকাঠামো । শৈশব থেকে কৈশোর এমনকি যুবসমাজ আজ দিশেহারা । স্মার্টফোনে মুখগুঁজে বিনোদনের স্বপ্ন খুঁজেচললেছে । আত্মীক সম্পর্ক ক্রমে যান্ত্রিক হয়ে উঠছে দ্রুত গতিতে । সেবা ওয়েলফেয়ার সোসাইটি যুব সমাজকে নিয়ে নিজেদের প্রচেষ্টায় নানান সামাজিক কাজের সাথে গড়ে তুলেছে সেবা ফুটবল একাডেমি । স্বাস্থ‍্য‍ সচেতনতা , রক্তদান , থ্যলাসেমিয়া শিরির , ফ্রি রক্ত পরীক্ষা , ফ্রি ডাক্তারী পরীসেবা , বিনামূল্যে ঔষধ বিতরন ,শহীদ তর্পণ ও নেতাজী স্মরণের সাথে সাথেই প্রতিদিন ভোর পাঁচটা থেকে আটটা পর্যন্ত চলে বিনামূল্যে এই ফুটবল প্রশিক্ষণ শিবির । জনা পঞ্চাশেক উদীয়মান ক্রীড়াবিদ অংশ নিচ্ছেন দুর দুরান্ত থেকে । পিংলার আগনা ,সবংয়ের তেমাথানী , লুটুনীয়া , বেনেদিঘী , কুণ্ডলপাল , জলবিন্দু , চাঁদকুড়ী ,সবং ইত্যাদি নানান স্থান থেকে জড় হন বেনেদিঘী হাইস্কুলের মাঠে । আগে সবংকলেজের মাঠে এই আসর বসলেও করোনা পরিস্থিতিতে এখন নিয়মিত বেনেদিঘীতে বসছে এই শিবির । প্রধান কোচ সুদীপ ঘোড়ুই মাড়োতলা সত্যেস্বর ইনস্টিটিউশনের ক্রীড়া শিক্ষক  তিনি জানান ,” আধুনিকতার অন্ধ অনুকরণে ক্ষয়িঞ্চু অনেককিছুর মতোই যুব সমাজ খেলা থেকে সরছে দ্রুত গতীতে , এর ফল মারাত্মক । প্রতিঘরে বাড়ছে চিকিৎসা ব্যায় । সুস্থ্যদেহই সুস্থমনের আঁতুরঘর । যুব সমাজ খেলার মাঠ থেকে যতই সরবে সমানুপাতিক হারেই বাড়বে সমস্যা , টেকনিকটা ধরিয়ে দিতে পারলেই দ্রুত এগিয়ে দেওয়া যায় , এই ধরনের শিবিরের সংখ্যা বাড়াতে হবে । ” সহকারী কোচ তথা সেবা ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সম্পাদক অরুণ সাঁতরা জানান , ” অবক্ষয়ী যুব সমাজকে পথ দেখানোর সমান্য প্রচেষ্টা মাত্র । স্থায়ী মাঠ ও ক্রীড়া সরঞ্জামের তীব্র অভাব , সবার সহযোগিতায় এগিয়ে চলুক এই প্রচেষ্টা ।” স্থানীয় শিক্ষক অরিজিৎ দাস অধিকারী বলেন , ” বর্তমানে খুব ছোট টুর্নামেন্টও বিদেশী খেলোয়াড় এনে লোক টানতে হচ্ছে যা ভবিষ্যতের পক্ষে মারাত্মক । আমাদের বিনোদনের সাথে সাথে শরীর চর্চ্চায় মাঠগুলোতে যুবশক্তির বেশী প্রয়োগ দরকার । যুবসমাজকে সঠিক দীশা দিতে এই ধরন উদ্যোগের প্রসার ঘটাতে হবে । ” কাকভোরে প্রশিক্ষণে আসা কুণ্ডলপালের অভিজিত মাজি বলে , ” বিনে পয়সায় এমন সুযোগ পেয় সত্যিই আপ্লুত, আমরা গরীবরা যাবো কোথায় ? “। লুটুনীয়ার সালকু মুর্ম্মু আজ এলাকার খেলোয়াড় হিসেবে বেশ পরিচিত হয়ে উঠেছে , যার নেপথ্যে এই শিবির । নাকিন্দীর বছর সতেরোর শান্তনু জানা , তেমাথানীর অভিষেক  ছাড়াও কোকো,মহাদেব, শুভ , সুমন, দূর্গা,পার্থরা মফস্বলে এমন এক ফ্রি কোচিং ক্যম্পের জন্য কৃতঞ্জতা জানান ক্লাব সেবাকে । প্রশাসনিক সহযোগিতায়  এমন শিবির পূর্ণতা পাক , এই কামনা তাদের । গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য শংকর ঘোড়াই এলাকায় এমন এক সংস্থার জন্য গর্ববোধ করেন । তিনিও চান সরকার এঁদের পাশে দাঁড়াক । জেলাপরিষদ সদস্য অমূল্য মাইতি প্রশাসনের দৃষ্টিতে আনবেন কথা দিয়েছেন । খেলার মাঠে যুবসমাজের যুবশক্তির পূর্ণ বিকাশে এগিয়ে চলুক সেবা ‘ র সেবা কর্ম্ম ।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!