Sunday, September 19, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরনারায়ণগড়ে শুভেন্দু সহায়তা কেন্দ্রে ভাঙ্গচুর ও অনুগামীকে মারধর,অভিযুক্ত বিজেপি।

নারায়ণগড়ে শুভেন্দু সহায়তা কেন্দ্রে ভাঙ্গচুর ও অনুগামীকে মারধর,অভিযুক্ত বিজেপি।

- Advertisement -

 

মিহির জানা,নারায়ণগড়:-শুভেন্দু সহায়তা কেন্দ্রে ভাঙ্গচুর ও অনুগামীকে মারধর, অভিযুক্ত বিজেপি।
প্রসঙ্গত গত ১৮ ডিসেম্বর পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার নারায়ণগড়ের মকরামপুরে শুভেন্দু অধিকারীর অনুগামীরা সহায়তা কেন্দ্র গড়ে তুলেছিলেন। সোমবার সেই কেন্দ্রে ভাঙচুর ও এক অনুগামীকে মারধরের অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে। আহত একজনকে মকরামপুর প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। দাদার অনুগামী বলে পরিচিত সন্দীপ মেটিয়া এদিন জানান, দাদা (শুভেন্দু) যেহেতু বিজেপিতে যোগদান করেছেন তাই আমরা তার অনুগামী হয়ে সহায়তা কেন্দ্রে বিজেপির পতাকা লাগাচ্ছিলাম। তখনই বিজেপির কয়েকজন এসে নানা প্রশ্ন করে। কথাকাটাকাটির পরে মারধর করা হয়। ছিঁড়ে দেওয়া হয়েছে শুভেন্দু অধিকারীর ছবি দেওয়া ফ্লেক্স। লণ্ডভণ্ড করা হয় অফিস।

- Advertisement -

যদিও বিজেপি এই ঘটনাকে অস্বীকার করে ঘটনাকে তৃণমূলের চক্রান্ত বলে দাবি করেছে। সন্দীপ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে দাদার অনুগামী হিসেবে কাজ করেছি। দাদা বিজেপিতে যোগদান করেছেন। আমরাও বিজেপি। সহায়তা কেন্দ্রে বিজেপির পতাকা লাগাচ্ছিলাম। তার অভিযোগ, তিনি বিজেপির কোন পদে আছেন ? কিংবা কবে থেকে বিজেপিতে যোগ দিলেন ? এমন নানা প্রশ্ন করা হয় তাকে। তার অভিযোগ, বিজেপির পুরাতন কয়েকজন নেতৃত্ব কার্যালয়ে এসে চেয়ার উল্টে, দাদার ছবি লাগানো ফ্লেক্স ও প্রয়োজনীয় কাগজ ছিঁড়ে দিয়েছে। নারায়ণগড় থানায় ঘটনার লিখিত অভিযোগ করেছেন বলে দাবি করেন সন্দীপ। তবে পুলিশ জানিয়েছে, এদিন সন্ধ্যা পর্যন্ত কোনও লিখিত অভিযোগ জমা পড়েনি। বিজেপির নারায়ণগড় উত্তর মণ্ডলের সভাপতি সত্যজিত দে বলেন,” ঘটনার সঙ্গে আমাদের কেউ জড়িত নয়। তৃণমূলের পক্ষ থেকেই এই কাজ করা হয়েছে। কাউকে আমাদের দলে আসতে হলে নির্দিষ্ট পদ্ধতি মেনে আসতে হবে।” তবে তৃণমূলের মকরামপুর অঞ্চল সভাপতি নাকফুড়ি মুর্মু বলেন,” এটা সম্পূর্ণ পুরাতন বিজেপি ও অনুগামী বিজেপির লড়াই। এতে আমাদের কোনও যোগ নেই।”

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!