EXCLUSIVE: ভোট-পরবর্তী হিংসা অব্যাহত,সবংয়ে তৃণমূল কর্মীকে বেধড়ক মারধরে অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে

খড়গপুর ২৪×৭,সবং: ভোট মিটলেও মিলল না স্বস্তি। দ্বিতীয় দফা ভোটের পর হিংসার ঘটনা ঘটেছে একাধিক জেলায়। এবার এক তৃণমূল কর্মীকে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে।

রবিবার বিকেলে ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার সবং থানার ১৩ নম্বর বিষ্ণুপুর অঞ্চলের জগন্নাথ চক এলাকায়। ঘটনায় গুরুতর আহত হয় সন্ন্যাসী বর্মন নামে এক তৃণমূল কর্মী। ইতিমধ্যেই ওই তৃণমূল কর্মী সবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তৃণমূলের অভিযোগ, আজ বিকেলে সন্ন্যাসী বর্মন নামে ওই তৃণমূল কর্মী রেশন দোকান থেকে রেশন সামগ্রী নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন।

সেই সময় জগন্নাথচক এলাকায় বেশ কয়েকজন বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতী পথ আটকায়। তারপরই কাঠের বাটাম ও লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। এমনকি কাঠের বাটাম দিয়ে মাথায় আঘাত করা হয়। মাথা ফেটে রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়ে ওই তৃণমূল কর্মী। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে তৃণমূল কর্মীরা গিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় ওই তৃণমূল কর্মীকে উদ্ধার করে সবং গ্রামীণ হাসপাতাল ভর্তি করে।

ইতিমধ্যে ওই তৃণমূল কর্মীর সবং হসপিটালে চিকিৎসা চলছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হয়ে নির্বাচনে ক্যাম্পিং করায় এই হামলা বলে অভিযোগ তৃণমূলের। এই ঘটনায় তৃণমূলের তরফে সবং থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অন্যদিকে বিজেপির তরফে সম্পূর্ন অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। এব্যাপারে সবং ব্লক বিজেপি নেতা অজিত দত্ত গুপ্তের দাবি, তৃণমূলের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তৃণমূল জানে এই নির্বাচনে জিততে পারবে না। বিজেপি কে ছোট করার জন্য ওরা এই অভিযোগ করছে। এটা তৃণমূলের নিজেদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে ঘটেছে। এই ঘটনার সঙ্গে বিজেপির কোন কর্মী জড়িত নয়। এলাকায় উত্তেজনা থাকায় ঘটনাস্থলে রয়েছে সবং থানার পুলিশ।