চৈত্র সেলে দেদার ভিড় খড়গপুরে,শিকিয়ে করোনা বিধি

খড়গপুর ২৪×৭: সেল বাজার জমজমাট খড়গপুর শহরের গোলবাজার ও গেটবাজারে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মানুষের ভিড়ে থিকথিক করছে এই দুটি বাজার। সবচেয়ে বেশি ভিড় কাপড় সহ রেডিমেড জামা কাপড় সহ মহিলাদের পোশাকের দোকানে। কিন্তু বেশিরভাগ মানুষ বেপরোয়া।

দোকানদার থেকে শুরু করে ক্রেতাদের অধিকাংশের মুখে কোনও মাস্ক নেই। এমনকি এই ভিড়ের মধ্যে বাচ্চা কোলে করে নিয়ে আসা মায়ের মুখেও মাস্ক নেই। অথচ খড়গপুর শহরে গত কয়েকদিনে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। চিন্তার ভাঁজ স্বাস্থ্য দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিকদের কপালে। ইতিমধ্যে সোমবার জেলা টাস্ক ফোর্সের একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়েছে।

সেখানে করোনা প্রতিরোধ সহ মোকাবিলায় এক গুচ্ছ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কিন্তু হুঁশ নেই সাধারণ মানুষের। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রেলশহর খড়গপুরের গোলবাজারে গিয়ে দেখা গেল বেশিরভাগ মানুষের মুখে মাস্ক নেই। কেন এই অবস্থা? জানার জন্য সুমিতা পাল নামে শহরের ইন্দা এলাকার এক মহিলা অকপটে স্বীকার করে বলেন বাড়িতে রয়েছে। আনতে ভুলে গিয়েছেন। আবার তুহিন রায় নামে এক ব্যক্তি বললেন ” হওয়ার হলে এমনিতেই হবে। মাস্ক পরে কোনও লাভ নেই। বরং নাক মুখ ঢাকা থাকলে এই গরমে অস্বস্তি আরও বেশি হয়। তাই যা হওয়ার হবে।” এরকমই বেপরোয়া মানুষজন।

গোলবাজার রামমন্দির এলাকায় থাকেন রামকিষাণ শর্মা। গোলবাজারে এসেছেন টিভির রিমোট ঠিক করাতে। মাস্ক না পরে এসেছেন। মাস্ক পরেন নি কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন বাড়িতে ভুলে ফেলে এসেছেন। এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কাপড় দোকান মালিক খানিকটা বিরক্তি প্রকাশ করে বললেন ” এই গরমে সারাদিন দরকার নেই। এক ঘন্টা মাস্ক পরে থাকুন এই ভিড়ের মধ্যে। তাহলেই বুঝতে পারবেন।” অথচ এখন থেকে সতর্ক না হলে বিপদ বাড়তে পারে। এই বোধটাই অনেকেই হারিয়ে ফেলেছেন। আর এই ব্যাপারে কেউ বলার নেই। দেখার নেই।