পিংলায় ধর্ষণের পর খুন কলেজ ছাত্রীকে, গ্রেফতার ৩

খড়গপুর ২৪×৭: কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের পর খুনের অভিযোগে পিংলা থানার পুলিশ এক মহিলা সহ দুই যুবককে গ্ৰেফতার করেছে। পুলিশ জানিয়েছে ধৃতরা হলো ছোটু মুন্ডা(৩৫), বিকাশ মুর্মু (২৭) ও তাপসী পাত্র(৩৫)। এদের মধ্যে দিনমজুর বিবাহবিচ্ছিনা তাপসীর বাড়ি সবং থানার তেমাথানি।

আর ছোটুর বাড়ি ঝারখন্ড রাজ্যের বহরাগেরা ও বিকাশের বাড়ি বেলাদায়। এই তিনজনকে মঙ্গলবার জেলা আদালতে হাজির করা হয়েছে। পুলিশ এই তিনজনকে হেফাজতে নেওয়ার আবেদন করেছে। মৃত ছাত্রী শাশ্বতী জানার বাবা স্বপন জানার একটি অভিযোগের ভিত্তিতে ধৃতদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে খুনের মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

আর মহিলার বিরুদ্ধে গোটা ঘটনায় ষড়যন্ত্র ও মদতের একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এদিকে এইদিন এই ছাত্রীকে ধর্ষণের পর খুনের ঘটনায় সঠিক তদন্তের জন্য পুলিশ কুকুর নিয়ে আসার দাবিতে সকাল থেকে পিংলা ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের ডাকে জামনা মোড়ে পথ অবরোধ শুরু হয়। পথ অবরোধে ডেবরা কলেজের এই ছাত্রীর সহপাঠীরা যোগ দেন। পরে বিকালের দিকে পুলিশ কুকুর নিয়ে আসার পর সন্ধ্যার সময় পথ অবরোধ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। প্রসঙ্গত সোমবার বিকালে পিংলা থানার জামনা এলাকায় জানা পরিবারের নতুন বাড়ি লাগোয়া একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে এই ছাত্রীর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

তখনই অভিযোগ উঠে ডেবরা কলেজের এই ছাত্রীকে ধর্ষণের পর খুন করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে এই তিনজনকে আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। জেরায় দুই যুবক ঘটনার কথা স্বীকার করার পর রাতে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়। এই তিনজন পিংলা থানার জামনা এলাকায় স্বপন জানার নতুন বাড়িতে গত কুড়ি দিন ধরে কাজ করছিল। সোমবার দুপুরের পর থেকে এই যুবতীকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে বিকালের দিকে পরিত্যক্ত বাড়িতে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায় অবিন্যস্ত অবস্থায়।