Monday, September 27, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরলোকাল ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায়,খড়গপুর স্টেশনে পাঁচ হাজার হকারের ভবিষ্যত অনিশ্চিয়তার...

লোকাল ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায়,খড়গপুর স্টেশনে পাঁচ হাজার হকারের ভবিষ্যত অনিশ্চিয়তার মুখে

- Advertisement -

খড়গপুর ২৪×৭: লোকাল ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শুধুমাত্র খড়গপুর স্টেশনে পাঁচ হাজার হকারের ভবিষ্যত অনিশ্চিয়তার মুখে। আর গোটা খড়গপুর ডিভিশন ধরলে এই সংখ্যাটি আট হাজার। শুধু তাই নয় খড়গপুর স্টেশনের প্রায় সাড়ে তিনশো ভেন্ডার ও সহায়কের রোজগার তলানিতে ঠেকেছে।

এছাড়া লোকাল ট্রেন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় খড়গপুর ডিভিশনের দশ হাজার ঠিকা শ্রমিক কাজ হারানোর মুখে। ফলে সবমিলিয়ে লোকাল ট্রেন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপুল সংখ্যক হকার ও ঠিকা শ্রমিকের ভবিষ্যত অন্ধকারে ডুবে যেতে চলেছে। গত বছর লকডাউনের সময় লোকাল ট্রেন সহ সমস্ত ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সমস্ত হকার বেকার হয়ে গিয়েছিলেন। কোনও রোজগার ছিল না।

- Advertisement -

পরবর্তীকালে ট্রেন চলাচল শুরু হলে দেখা যায় অনেক হকার আর পুরনো পেশায় যোগ দেন নি। কারন ততদিনে তাঁরা বিকল্প পেশায় চলে গিয়েছেন রোজগারের আশায়। কিন্তু তারপরেও এই সংখ্যক হকার ফের পুরনো পেশায় ফিরে আসেন। মোটামুটি চলছিল। কিন্তু গত ৭ মে থেকে মেদিনীপুর ভায়া খড়গপুর হাওড়া রেল শাখায় লোকাল ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এঁরা সমস্যায় পড়েছেন। এরকমই একজন খড়গপুর স্টেশনের ভেন্ডার হরিশংকর দত্ত। তিনি জানালেন লোকাল ট্রেন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কেনাবেচা একেবারে তলানিতে।

এখন শুধুমাত্র দূরপাল্লার মেল কিংবা এক্সপ্রেস ট্রেনের উপর নির্ভর করে চলতে হচ্ছে। যদিও এইসব দূরপাল্লার ট্রেনগুলিতে যাত্রী সংখ্যা অনেকটাই কমে গিয়েছে। তিনি বললেন ” সংসার কিভাবে চলবে জানি না। ভবিষ্যত কি হবে জানা নেই।”

এই ব্যাপারে এআইটিইউসির জেলা সম্পাদক বিপ্লব ভট্ট বলেছেন এই অবস্থায় রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকারের উচিত এইসব হকারদের মাসে অন্তত সাত হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়া। যতদিন না পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে। সরকারের উচিত এদের দায়িত্ব নেওয়া। তা না হলে এদের সংসারগুলি ভেসে যাবে। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন রেলের ঠিকাদার শ্রমিকদের স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে যাতায়াত করার সুযোগ দেওয়া হোক।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!