কোভিড আক্রান্ত পরিবার গুলির খাবারের দায়িত্ব নিজেদের কাঁধে তুলে নিলেন,খড়গপুর গ্রামীন এলাকার রেড ভোলেন্টিয়ার টীম

KGP 24X7: দিন আনা দিন খাওয়া এমন গোষ্টী সংক্রমণ একাকার গরীব অধ্যুষিত কোভিড আক্রান্ত পরিবার গুলির খাবারের দায়িত্বও নিজেদের কাঁধে তুলে নিলেন রেড ভোলেন্টিয়ার টীম।খড়্গপুর গ্রামীন এলাকার গোপালীতে যুব সংগঠনের রেড ভলেন্টিয়াররা এতদিন চিকিৎসার জন্য ডাক্তার ঔষধ, প্রয়োজনে অক্সিজেন এলাকায় স্যানিটাইজেশন এর দায়িত্ব পালন করার কাজ করে আসছিলেন।

সেই কাজ করতে গিয়ে এলাকার আদিবাসীপাড়া, বাগদি পাড়া গুলিতে দিন মজুরী করে চলা পরিবার গুলিতে গোষ্টী সংক্রমণ। দারিদ্র্য অধ্যুষিত এমন এলাকায় ৩৭ টি পরিবার পুষ্টিকর খাদ্যতো দূরের কথা, তাদের ক্ষুদা নিবারনের রসদ টুকুও ঘরে নেই। দুয়ারে সরকার এখন আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা। তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েত, সদ্য নির্বাচিত তৃণমূল বিধায়ককেও পাওয়া যায়নি।

মানুষের দরবার সেই গোপালীতে রেড ভলেন্টিয়াররা টীমের পরিষেবা দেওয়ার স্থলে। এমন পরিবার গুলিতে প্রতিদিন দুবেলা রান্না করা খাবার পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব রেড ভোলেন্টিয়ার টীম নিজেদের কাঁধে তুলে নিয়েছেন। প্রতিবেলায় ১৪০ জনের খাবার রান্না সহ তা পৌঁছে দেওয়া এবং চিকিৎসার সমস্ত ধরনের কাজ করছেন ৩৭ জনের টীম। ডি ওয়াই এফ আই গোপালী লোকাল কমিটির উদ্যোগে সেই কাজ চলছে।

গোপালী অফিস থেকে ২৪ ঘন্টা পরিষেবা দেওয়ার কাজ নিজেরাই রুটিন করে করছেন।
করোনা রোগীদের বাড়ীতে চিকিৎসার সাথে প্রয়োজনে হাসপাতালে পৌঁছানো, রক্তের ব্যবস্থা , অক্সিজেনের ব্যবস্থা সব কিছুই চেষ্টা করছে রেড ভলেন্টিয়ার্স টীম। অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন যুব নেতা উত্তম নাগ, প্রতীক সরকার, রবি হেমব্রম, দীপঙ্কর দে, নরেন্দ্র নাথ মান্নাদের নেতৃত্বে একদল তরুণ। ছাত্র যুবদের এমন কাজে সহযোগিতার জন্য এগিয়ে এলেন বীরেন সরকার, সান্টু রঞ্জন দে, এন বাবু রাও, যোগেন্দ্র নাথ দে প্রমূখ গনতান্ত্রিক আন্দোলনের নেতৃত্ব।

এবারের জোট প্রার্থী এস এফ আই জেলা সভাপতি সৈয়দ সাদ্দাম আলিও সেই কাজে সামিল হয়েছেন। এসএফআই পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা কমিটি পিপি কিটস সহ অন্যান্য উপকরণ দিয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে।

প্রতিদিন দুবেলা মিলিয়ে তিনশ জনের খাবার যোগাড় সহ সমস্ত ধরনের সহযোগিতা করতে এগিয়ে এসেছেন সিপিআইএম খড়গপুর গ্রামীন-১ এরিয়া কমিটিও।
কমরেড দের কাজে উপস্থিত থেকে সহযোগিতা সহ সাহায্য করছেন কমল কমল, দিলীপ সাউ সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

মানুষকে বাঁচাতে ছাত্র যুবদের এমন প্রয়াসকে সাধুবাদ জানিয়ে একাকার বহু মানুষ পরিষেবা কেন্দ্রে এসে সাহায্য করছেন এবং উৎসাহিত করছেন। প্রসাশনের দায়িত্ব পালন করছেন এখন রেড ভলেন্টিয়াররা টীম