দল বিরোধী কাজের অভিযোগে,সবংয়ের বলপাই পঞ্চায়েতের প্রধানের বিরুদ্ধে অনাস্থা

KGP 24X7(SABANG):  দাদা অমূল্য মাইতি বিজেপির নেতা। আগে জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ ছিলেন। আর বোন প্রতিমা প্রামাণিক সবং থানার বলপাই গ্ৰাম পঞ্চায়েতের প্রধান। তিনি এখনও দল ত্যাগ না করে তৃণমূলে রয়েছেন। কিন্তু তারপরেও দলেরই সাতজন গ্ৰাম পঞ্চায়েত সদস্য এই প্রধানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনেছেন। তারসাথে কংগ্ৰেস ও বিজেপি ত্যাগী দুই পঞ্চায়েত সদস্য যুক্ত হয়েছেন। সবমিলিয়ে নয়জন গ্ৰাম পঞ্চায়েত সদস্য প্রধান প্রতিমা প্রামাণিকের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনেছেন। যার উপর ভোটাভুটি হবে আগামী বুধবার।

সবংয়ের বিডিও ওইদিন বলপাই গ্ৰাম পঞ্চায়েতের একটি তলবি সভা ডেকেছেন। আর এই সভার চিঠি প্রধান ও উপপ্রধান সহ সমস্ত গ্ৰাম পঞ্চায়েত সদস্যকে পাঠানো হয়ে গিয়েছে। যদিও এই নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে রাজি হন নি বিজেপি নেতা তথা প্রার্থী অমূল্য মাইতি। তিনি বলেন ” আমি তৃণমূলের কেউ না। সুতরাং এই ব্যাপারে আমি কিছু জানি না।

বলতেও পারব না। এই ব্যাপারে তৃণমূলের নেতারা ভালো বলতে পারবে।” আর এই গ্ৰাম পঞ্চায়েত প্রধান প্রতিমা প্রামাণিক বলেন ” আমি জানি না কেন ও কি উদ্দেশ্যে আমার বিরুদ্ধে আমারই দল অনাস্থা প্রস্তাব এনেছে। আমাকে দলের ব্লক নেতৃত্ব আমাকে ডেকে সবাইকে নিয়ে কাজ করার নির্দেশ দেন। বিশেষ তিনজনের নাম পর্যন্ত বলে দেওয়া হয়। সেইমত আমি কাজ করছিলাম।” তারপরেও কেন অনাস্থা আনা হয়েছে সেই নিয়ে তিনি বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। তবে মানুষ এর জবাব দেবেন বলে জানালেন অনাস্থা প্রস্তাবের উপর ভোটাভুটিতে নিশ্চিত পরাজয়ের মুখে দাঁড়িয়ে থাকা এই মহিলা প্রধান।

অপরদিকে যুব তৃণমূলের সবং ব্লক সভাপতি তথা সবং পঞ্চায়েত সমিতির প্রাণী সম্পদ বিকাশ কর্মাধ্যক্ষ আবু কালাম বক্স বলেছেন ” এবারে বিধানসভা নির্বাচনে এই প্রধান ও উপপ্রধান স্বপন মান্না বিজেপির প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছেন। অনাস্থা প্রস্তাব প্রধান ও উপপ্রধানের বিরুদ্ধে আনা হয়েছে।” আর বিডিও তুহিন শুভ্র মাহান্তি জানালেন ” বুধবার বলপাই গ্ৰাম পঞ্চায়েতে একটি অনাস্থা প্রস্তাবের উপর ভোটাভুটির জন্য তলবী সভা ডাকা হয়েছে।

পাঁচ দিন হয়ে গিয়েছে ইতিমধ্যেই প্রধান ও উপপ্রধান সহ সমস্ত গ্ৰাম পঞ্চায়েত সদস্যকে এই বিশেষ অধিবেশনের চিঠি পাঠানো হয়েছে।” গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে বলপাই গ্ৰাম পঞ্চায়েতে মোট ১৫টির মধ্যে নয়টি আসন দখল করে বোর্ড গঠন করে তৃণমূল। প্রধান করা হয় তৎকালীন তৃণমূল নেতা তথা জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ অমূল্য মাইতির বোন প্রতিমা প্রামাণিককে। উপপ্রধান করা হয় অমূল্য অনুগামী স্বপন মান্নাকে। তারপর এই বিধানসভা নির্বাচনের আগে অমূল্য মাইতি বিজেপিতে যোগ দেন। আর প্রার্থীও হন।

যদিও তিনি মানস ভুঁইয়ার কাছে পরাজিত হয়েছেন। তবে তখন থেকেই অভিযোগ উঠতে শুরু করে বলপাই গ্ৰাম পঞ্চায়েতের প্রধান ও উপপ্রধান বিজেপি প্রার্থী অমূল্য মাইতির হয়ে কাজ করেছেন। তারপর তৃণমূলের পক্ষ থেকে সাতজন গ্ৰাম পঞ্চায়েত সদস্য প্রধানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনেন। কিন্তু করোনার বিধিনিষেধের জেরে ভোটাভুটি প্রক্রিয়া করা যায় নি। তবে এই মুহূর্তে এই গ্ৰাম পঞ্চায়েতে প্রধান ও উপপ্রধানকে নিয়ে তৃণমূলের সদস্য রয়েছেন বারো জন।

কারন বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর বিজেপির ও কংগ্রেসের একমাত্র সদস্যরা আনুষ্ঠানিকভাবে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। আর বাম সমর্থিত একজন নির্দল গ্ৰাম পঞ্চায়েত সদস্য তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। সবমিলিয়ে প্রধান ও উপপ্রধান বাদে বর্তমানে মানস ভুঁইয়ার দিকে দশজন রয়েছেন। ফলে তৃণমূলের নতুন প্রধান নির্বাচিত হওয়া শুধু সময়ের অপেক্ষা।