খড়গপুর পৌরসভা দখলে রাখতে মরিয়া তৃণমূল, পিছিয়ে নেই বিজেপিও

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: যে কোনও সময় পুরসভা নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা হতে পারে। মূলত এটাকেই মাথায় রেখে খড়গপুর শহরের তৃণমূল নেতারা পুরসভা নির্বাচনের প্রস্তুতির কাজ শুরু করার উদ্যোগ নিয়েছে। লক্ষ্য যেভাবেই হোক খড়গপুর পুরসভা দখলে রাখা।

যদিও লড়াই খুবই কঠিন। কারন সেই এগারোর জট। গত পুরসভা নির্বাচনে খড়গপুরে তৃণমূল এগারোটি ওয়ার্ডে জয়ী হয়েছিল। পরে অবশ্য বোমা বন্দুক, মিথ্যা মামলা দিয়ে ও বিভিন্নভাবে ভয় দেখিয়ে বিরোধী দলের কাউন্সিলরদের ভাঙ্গিয়ে এনে পুরসভা দখল নেয় তৃণমূল। তারপর আরও বেশ কয়েকজন কাউন্সিলর বিভিন্ন সময়ে তৃণমূলে যোগ দেন।

সবমিলিয়ে মোট ৩৫টি ওয়ার্ডের মধ্যে ২৬টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নিয়ে তৃণমূল বোর্ড চালিয়েছে গত পাঁচ বছরে। যদিও এই সংখ্যা গরিষ্ঠতার কোনও প্রতিফলন পরবর্তীকালে বিধানসভা থেকে লোকসভা নির্বাচনে পড়ে নি। শুধুমাত্র ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে উপনির্বাচনে বেশিরভাগ ওয়ার্ডে তৃণমূল জয়ী হয়েছিল। বিধায়ক হয়েছিলেন পুরপ্রধান প্রদীপ সরকার। কিন্তু সম্প্রতি শেষ হওয়া বিধানসভা নির্বাচনে ফের বিজেপি জয়ী হয়।

মোট ৩৫টি ওয়ার্ডের মধ্যে তৃণমূল জয়ী হয়েছে এগারোটি ওয়ার্ডে। বাকি ২৪টি ওয়ার্ডে জয়ী হয়েছেন বিজেপির তারকা প্রার্থী হিরণ। অর্থাৎ সেই এগারোর গেরোয় আটকে খড়গপুরে তৃণমূল। আর এই পরিস্থিতিতে এবারে পুরসভা নির্বাচনে নামতে চলেছে খড়গপুর শহরে তৃণমূল। যদিও এবারেও পুরসভা দখলের ব্যাপারে তৃণমূল প্রবল আশাবাদী। কিন্তু কাঁটা হয়ে রয়েছে দলে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব।

একদিকে বর্তমান পুরসভার প্রশাসক তথা প্রাক্তন বিধায়ক প্রদীপ সরকার, প্রাক্তন পুরপ্রধান জহরলাল পাল, বিদায়ী উপ পুরপ্রধান শেখ হানিফ সহ অধিকাংশ বিদায়ী কাউন্সিলর। অপরদিকে রয়েছেন তৃণমূলের বিক্ষুব্ধ নেতা দেবাশিস চৌধুরী, প্রাক্তন পুরপ্রধান রবিশংকর পান্ডে সহ বাকিরা। অপরদিকে সদ্য শেষ হওয়া বিধানসভা নির্বাচনে জয়ী বিজেপি শিবির এই মুহূর্তে খড়গপুর শহরে বেশ শক্তিশালী ও উজ্জিবীত।

এবারে এই পুরসভা দখলে গেরুয়া শিবির রীতিমতো আঁটঘাট বেঁধে নামতে চলেছে। সামনে থেকে নেতৃত্ব দেবেন তারকা বিধায়ক হিরণ। আর স্থানীয় সাংসদ তথা বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ তো রয়েছেনই মাথার উপর।ফলে এবারে পুরসভা দখলে রাখা খড়গপুর শহরের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের কাছে রীতিমতো চ্যালেঞ্জের। আর এই চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করার জন্য তৃণমূল শিবিরও ঘর গোছাতে শুরু করেছে। জানা গিয়েছে এবারে নির্বাচন পরিচালনার জন্য শক্তিশালী একটি কোর কমিটি গঠন করা হবে।

তারসাথে ২০১৯ সালে বিধানসভা উপ নির্বাচনের ধাঁচে প্রতিটি ওয়ার্ডে এক থেকে দুই জন করে পর্যবেক্ষক নিযুক্ত করা হবে। তাছাড়া প্রার্থী নির্বাচনের ক্ষেত্রে অনেক সতর্কতা অবলম্বন করা হবে। বিশেষ করে যে সমস্ত ওয়ার্ডে বিদায়ী কাউন্সিলর তথা কোঅর্ডিনেটরদের বিরুদ্ধে মানুষের ক্ষোভ রয়েছে ও ভাবমূর্তি স্বচ্ছ নয় তাদেরকে আবার প্রার্থী না করার সম্ভাবনা বেশি।

পাশাপাশি এবারে বিধানসভা নির্বাচনে যে সব নেতা ও কর্মীদের বিরুদ্ধে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে নাশকতা করার অভিযোগ উঠেছে তাদেরকেও বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত একপ্রকার পাকা বলে জানা গিয়েছে। যদিও এই ব্যাপারে কোনও নেতা প্রকাশ্যে কিছু বলতে রাজি হন নি। তৃণমূলের খড়গপুর শহর কমিটির প্রাক্তন সভাপতি তথা পুরপ্রধান রবিশংকর পান্ডে বলেছেন ” দল পুরসভা নির্বাচনের প্রস্তুতির কাজ শুরু করে দিয়েছে।

তবে জেলা কমিটির নির্দেশ অনুযায়ী কাজ হবে। আর প্রার্থী ঠিক হবে কলকাতা থেকে। খুব বেশি হলে প্রতিটি ওয়ার্ডে প্রার্থীদের নাম পাঠাতে বলা হতে পারে।” তবে পুরসভা পুনরায় দখলের ব্যাপারে প্রবল আশাবাদী রবিশংকর পান্ডে বলেছেন ” বিজেপি কিংবা অন্য বিরোধী দলগুলি যাই করুক না কেন খড়গপুর পুরসভা পুনরায় দখল করবে তৃণমূল। এই ব্যাপারে কোনও সন্দেহ নেই।”