শুভেন্দু অধিকারীকে বিদ্যাসাগর সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদ থেকে সরাতে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: শুভেন্দু অধিকারীকে বিদ্যাসাগর সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদ থেকে সরাতে প্রক্রিইয়া শুরু করল। বিদ্যাসাগর সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদ থেকে শুভেন্দু অধিকারীর অপসারণ চেয়ে ব্যাঙ্কের ডিরেক্টর বোর্ডের সদস্যরা মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন।

রবিবার মেদিনীপুরে এই বিষয়ে এক বৈঠক হয়। বৈঠকে বোর্ড সদস্যের মধ্যে ১৪ জন উপস্থিত ছিলেন বলে জানাগেছে। মিটিংয়ে উপস্থিত ছিলেন জেলা তৃণমূলের সভাপতি তথা পিংলার বিধায়ক অজিত মাইতিও।

বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী একাধিক সমবায় ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদ রয়েছেন। পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূল আগেই বিভিন্ন সমবায় ব্যাঙ্কের চেয়ার ম্যান পদ থেকে সরব হয়। এবার পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা তৃণমূলও বিদ্যাসাগর সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদ থেকে শুভেন্দু অধিকারীর অপ্সারণ চেয়ে প্রক্রিয়া শুরু করলেন।

জানা গিয়েছে, ২০১৯ সালে এই ব্যাঙ্কের পরিচালন সমিতির নির্বাচন হয়। তারপর চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হয় শুভেন্দু অধিকারী। তখন তিনি তৃণমূল দলেই ছিলেন। রাজ্যের মন্ত্রী ছিলেন। গত বছর ১৯ ডিসেম্বর মেদিনীপুরে অমিত শাহের হাত ধরে বিজেপি-তে যোগদান করেন। বিধানসভা ভোটে নন্দীগ্রাম থেকে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে জয়ী হন।

বিজেপি শুভেন্দু অধিকারীকে বিধানসভার বিরোধী দলনেতা নির্বাচিত করেন। তৃণমূল নেতৃত্বের অভিযোগ, শুভেন্দু অধিকারী অবৈধভাবে একাধিক সমবায় ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদ আঁকড়ে বসে আছেন। তাঁকে বার বার বলার পরেও ওই পদ তিনি ছাড়ছেন না। ব্যাঙ্কের কোনও কাজও করছেন না।

পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা তৃণমূলের সভাপতি, পিংলার বিধায়ক অজিত মাইতি বলেন, ‘শুভেন্দু অধিকারী রাজ্য সরকারের নানা সমালোচনা করছেন। অথচ নিজে সমবায় ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদে বসে আছেন। ব্যাঙ্কের কোনও কাজ করছেন না। গ্রাহকরা নানা ভাবে সমস্যায় পড়ছেন। সমালোচনা করতে হলে সমবায় ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদ ছেড়ে সমালোচনা করুন। তিনি বলেন, রবিবার বিদ্যাসাগর ব্যাঙ্কের ১৪ জন বোর্ড সদস্য মিটিং করে সিদ্ধান্ত নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন।

তারা লিখেছেন, হয় শুভেন্দু অধিকারীকে বিদ্যাসাগর ব্যাঙ্কের চেইয়ারম্যান পদ থেকে সরকারি নিয়ম মেনে অপ্সারণ করা হোক, নয় তো আমরা তাঁর বিরুদ্ধে অনাস্থা আনবো। অজিত মাইতি বলেন, এই চিঠি মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।’

বৈঠকে উপস্থিত ডিরেক্টর বোর্ডের এক সদস্য বলেন, ‘সকলেই এই বিষয়ে সহমত হয়েছেন ঠিক। কিন্তু সমবায় ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদ থেকে সরানোর ব্যাপারে কিছু আইনি জটিলতা আছে।

আমরা আমরা মুখ্যমন্ত্রীকে লিখিত ভাবে জানিয়েছি, শুভেন্দু অধিকারীকে বিদ্যাসাগর ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদ থেকে সরানোর জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হোক। এবার কীভাবে হবে সেটা আইন বলবে।’