EXCLUSIVE: গ্ৰামের এক গৃহবধূকে অপহরণের অভিযোগকে কেন্দ্র করে উত্তাল নারায়ণগড়,দফায় দফায় চলল রাস্তা অবরোধ বিক্ষোভ

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল:  গ্ৰামের এক গৃহবধূকে অপহরণের অভিযোগকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয়ে উঠল গোটা এলাকা। গ্ৰামের গৃহবধুকে অবিলম্বে ফেরত দিতে হবে। আর উধাও হয়ে যাওয়া ছেলেকে খুঁজে বের করে ঘরে ফেরাতে হবে।

পুলিশের প্রতি এই দাবি জানিয়ে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পথ অবরোধ শুরু করেন নারায়ণগড় থানার নারমা গ্ৰাম পঞ্চায়েতের নয়াগ্ৰাম এলাকার মানুষজন। তাঁরা মদনমোনচক মোড়ে এই অবরোধ করেছেন। অবরোধে সাধারন মানুষের সাথে স্থানীয় গ্ৰাম পঞ্চায়েত সদস্য সামিল হয়েছেন। গ্ৰামবাসীরা সাফ জানিয়েছেন পুরো ঘটনার দায় পুলিশের।

সদ্য বিবাহিতা গৃহবধূকে বাড়িতে ফিরিয়ে না দেওয়া পর্যন্ত এই আন্দোলন চলবে। পাশাপাশি উধাও হয়ে যাওয়া গৃহবধূর স্বামীকেও খুঁজে বের করতে হবে। এই গ্ৰামের বাসিন্দা প্রশান্ত সিংয়ের সঙ্গে খড়গপুর গ্ৰামীণ থানার রাখাজঙ্গল এলাকার পূজা হাঁসদার ভালোবাসা করে আইনিভাবে বিয়ে হয় দশ দিন আগে। বিয়ের পর নব দম্পতি গ্ৰামের বাড়িতে ছিলেন। সুখে সংসার শুরু করেছিলেন। কিন্তু ছন্দপতন হয় বুধবার দুপুরে।

রাস্তার উপর বসে বিক্ষোভ করছেন স্থানীয় গ্রামবাসীরা

আর্থিকভাবে স্বচ্ছল গৃহবধূর বাপের বাড়ির লোকেরা নারায়ণগড় থানায় একটি অপহরণের অভিযোগ দায়ের করেন। থানায় ছেলে ও মেয়ে সহ সব পক্ষকে ডেকে পাঠানো হয়। গ্ৰামবাসীরা সহ স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্যের দাবি নব পরিণীতা গৃহবধু পূজা হাঁসদা থানায় দাঁড়িয়ে সাফ জানিয়ে দেন তিনি বাপের বাড়ি যাবেন না। স্বামী প্রশান্তের সাথে থাকবেন। কিন্তু তারপরেও গৃহবধূর বাপের বাড়ির লোকেরা হাল ছেড়ে দেননি।

অভিযোগ বুধবার দুপুরে গৃহবধূর মা ও কাকা সহ আরও কয়েকজন তারমধ্যে নয়াগ্ৰামের পাশের একটি গ্ৰামের দুজন স্থানীয় যুবক মিলে প্রশান্তের বাড়িতে চড়াও হয়। জোর করে নব পরিণীতা গৃহবধূকে তুলে নিয়ে চলে যায়। আর পুরো ঘটনাটি দুই সিভিক পুলিশের চোখের সামনে ঘটেছে। তারপরেই বুধবার রাতে বাড়িতে একটি চিঠি লিখে রেখে উধাও হয়ে যায় প্রশান্ত।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তাঁর খোঁজখবর করার কাজ শুরু করেন গ্ৰামবাসীরা। কিন্তু তাঁর মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয় নি। জানা গিয়েছে এইদিন সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রশান্ত বাড়ি ফেরেন নি। আর এই ঘটনায় গোটা এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়। গ্ৰামবাসীরা পথ অবরোধ শুরু করেন। এই ব্যাপারে প্রশান্ত সিংয়ের মা কিরন সিং জানিয়েছেন বুধবার দুপুরে বৌমার বাপের বাড়ির লোকেরা জোর করে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়েছে।

বাধা দিতে গেলে তাঁকে হেনস্তা করা হয়েছে বলে তাঁর অভিযোগ। তিনি বলেন বৌমা যেতে চায় নি। মুখে কাপড় বেঁধে জোর করে তুলে নিয়ে গিয়েছে। পুলিশকে জানানোর পর আশ্বাস দেওয়া হয় এক ঘন্টার মধ্যে বৌমাকে ফিরিয়ে দেওয়া হবে। কিন্তু গোটা একদিন পার হয়ে যাওয়ার পরেও ফিরিয়ে দেওয়া হয় নি। আর স্ত্রীকে এইভাবে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর বুধবার রাত থেকে ছেলে একটি চিঠি লিখে রেখে উধাও হয়ে গিয়েছে। তিনি বলেন ” আমরা গরীব।

আর বৌমার বাপের বাড়ির অবস্থা ভালো। এই আর্থিক বৈষম্যের শিকার হতে হচ্ছে আমার ছেলে ও পরিবারকে।” এলাকার বাসিন্দা শুভেন্দু নন্দী সাফ জানিয়েছেন গ্ৰামের বৌমাকে ফিরিয়ে দিতে হবে। আর উধাও হয়ে যাওয়া ছেলেকে খুঁজে বের করতে হবে। সেই দাবিতে পথ অবরোধ কর্মসূচি শুরু হয়েছে। যতদিন না দুজনকেই ফেরানো হচ্ছে ততদিন আমাদের আন্দোলন চলবে।” আর স্থানীয় গ্ৰাম পঞ্চায়েত সদস্য অনিমা রাউত বলেছেন ” গৃহবধূকে অপহরণ করা হয়েছে সিভিক পুলিশের চোখের সামনে।

আর ছেলেও উধাও হয়ে গিয়েছে। অথচ এঁরা ভালোবাসা করে আইনিভাবে বিয়ে করেছেন। দু’জনেই প্রাপ্তবয়স্ক।” তিনিও জানিয়েছেন গ্ৰামবাসীদের আন্দোলনের সাথে থাকবেন। অপরদিকে পুলিশ জানিয়েছে গৃহবধূকে খুঁজে বের করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খড়গপুর) রানা মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন ছেলের বাড়ির তরফে কোনও অভিযোগ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রয়োজনীয় সাহায্য করা হবে। এলাকার উত্তেজনা রয়েছে।