পরিকাঠামোর উন্নয়ন,খড়গপুরে চালু আইসিইউ পরিষেবা

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল:  সামর্থ্য থাকলেও এতদিন ধরে কোনও সংকটজনক রোগীকে আইসিইউ পরিকাঠামো যুক্ত খড়গপুর শহরের কোনও সরকারি কিংবা বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা যেত না।

কারন এই সুবিধা যুক্ত কোনও হাসপাতাল খড়গপুর শহরে ছিল না। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে বহু মানুষকে। এবারে সেই দুর্ভোগের দিন শেষ হতে চলেছে। শহরের একটি বেসরকারি নার্সিংহোমের হাত ধরে এই দুর্ভোগের দিন শেষ হতে চলেছে।

শহরের ছোটো ট্যাংরা এলাকায় খড়গপুর মহকুমা হাসপাতালের ঠিক উল্টোদিকে একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে আইসিইউ চালু হল। যার সূচনা হল রবিবার। তবে শুধু আইসিইউ নয়। তারসাথে এইদিন এই নার্সিংহোমে এইচডিইউ, ডায়ালিসিস ইউনিট চালু করা হয়েছে।

যা কিনা খড়গপুর শহরে এই প্রথম। আর এই নার্সিংহোমে এই সমস্ত জরুরি পরিষেবা চালু হওয়াতে খড়গপুর শহরের পাশাপাশি বেলদা, নারায়ণগড়, সবং, পিংলা, ডেবরা, কেশিয়াড়ি, দাঁতন ইত্যাদি থানার বহু আর্থিক সঙ্গতি সম্পন্ন মানুষ ও পরিবার উপকৃত হবে। এই নার্সিংহোমের কর্ণধার দেবরাজ মহারানা জানিয়েছেন অনেকদিন ধরেই এই প্রকল্পটি শুরু করার স্বপ্ন দেখছিলেন।

তার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। এইদিন সেই স্বপ্ন ও উদ্যোগ সফল হল। তিনি বলেন ” খড়গপুরের মত একটি শহর যা কিনা মিনি ইন্ডিয়া নামে পরিচিত সেরকম একটি শহরে সরকারি কিংবা বেসরকারি কোনও স্তরেই আইসিইউ ও ডায়ালিসিস ইউনিটের পরিষেবা ছিল না।

এটা আমাদের কাছে খুবই আক্ষেপের বিষয় ছিল। এবারে সেই আক্ষেপ কিছুটা হলেও মেটানো গেল।” এই বেসরকারি নার্সিংহোমে আপাতত চার শয্যার আইসিইউ ও ডায়ালিসিস ইউনিট চালু করা হয়েছে। তারসাথে পাঁচ শয্যার এইচডিইউ ইউনিট চালু করা হয়েছে। এছাড়াও থাকছে একটি রিকভারি ইউনিট।

এই নার্সিংহোমের প্রতিটি জরুরি শয্যা পাইপ বাহিত অক্সিজেন সরবরাহ ব্যবস্থার সাথে সংযুক্ত থাকছে। খড়গপুর শহরে এইধরনের একগুচ্ছ চিকিৎসা পরিষেবা চালু করার খবরে শহরের বহু মানুষ খুশী। তারসাথে অনেকটাই নিশ্চিন্ত হয়েছেন। কারন এতদিন পর্যন্ত সঙ্কটাপন্ন রোগীদের আইসিইউ পরিষেবা দিতে শহরের বাইরে অন্যত্র নিয়ে যেতে হত।

অনেকেরই মাঝপথে মৃত্যু হয়েছে। খড়গপুর মহকুমা হাসপাতাল, রেল হাসপাতাল ও আইআইটি হাসপাতালে আজ পর্যন্ত এইধরনের পরিকাঠামো যুক্ত চিকিৎসা পরিষেবা চালু হয় নি। একই অবস্থা কিডনি রোগীদের। ডায়ালিসিস করতে সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন করে মেদিনীপুর ছুটতে হয়।

ফলে করোনার তৃতীয় তরঙ্গের আগে এই পরিষেবা চালু হওয়ায় শহরের মানুষকে অনেকটাই ভরসা যোগাবে। আর নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন সরকারের সমস্ত নিয়মকানুন মেনে নূন্যতম লাভ রেখে চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া হবে।