Sunday, September 19, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরউচ্চ মাধ্যমিকের ফল প্রকাশকে কেন্দ্র করে খড়গপুর শহরের বিভিন্ন প্রান্তে বিক্ষোভ, স্কুলের...

উচ্চ মাধ্যমিকের ফল প্রকাশকে কেন্দ্র করে খড়গপুর শহরের বিভিন্ন প্রান্তে বিক্ষোভ, স্কুলের আসবাবপত্র ভাঙচুর

- Advertisement -

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: উচ্চ মাধ্যমিকের ফল প্রকাশকে কেন্দ্র করে খড়গপুর শহরের তিন প্রান্তে তিনটি স্কুলে বিক্ষোভ। আর এই ক্ষোভ বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে শনিবার দিনভর সরগরম হয়ে রইলো গোটা শহর। কোথাও পথ অবরোধ।

কোথাও স্কুলের আসবাবপত্র ভাঙচুর করা। আবার কোথাও প্রধানশিক্ষককে ঘেরাও করে রাখা। সবমিলিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকে অকৃতকার্য পড়ুয়াদের ক্ষোভ আছড়ে পড়ল সর্বত্র। তবে এইদিন সবচেয়ে বড় গন্ডগোল হয়েছে খড়গপুর শহরের পূর্ব প্রান্তে ইন্দা কৃষ্ণলাল শিক্ষানিকেতনে। এইদিন সকাল এগারোটা থেকে এই বিদ্যালয়ের সামনে অকৃতকার্য পড়ুয়া ও তাদের অভিভাবকরা জড়ো হতে শুরু করেন।

- Advertisement -

কিন্তু বেলা গড়িয়ে যাওয়ার পরও প্রধানশিক্ষক না পৌঁছানোয় অকৃতকার্য পড়ুয়াদের ক্ষোভ চরমে উঠে। তখন একাংশ পড়ুয়ারা বিদ্যালয়ের ভেতর থেকে চেয়ার, টেবিল, বেঞ্চ বের করে রাস্তায় নিয়ে এসে ব্যাপক ভাঙচুর শুরু করে। এমনকি বিদ্যালয়ের ভেতরে ঢুকে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির ফর্ম কেড়ে নিয়ে ছিঁড়ে ফেলা হয়। তারসাথে দাবি করতে থাকে তাদের পাশ করাতে হবে।

আর বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে যাবতীয় ক্ষোভ উগড়ে দিতে থাকেন। খবর পেয়ে খড়গপুর টাউন থানার আইসি বিশ্বরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে বিদ্যালয়ে পৌঁছে প্রধানশিক্ষক ক্ষুব্ধ পড়ুয়া ও অভিভাবকদের সঙ্গে একটি বৈঠক করেন। তাঁদের আশ্বাস দেওয়া হয় অকৃতকার্যদের বিষয় নিয়ে উচ্চ মাধ্যমিক সংসদের সাথে কথা বলবেন।

চেষ্টা করা হবে সমস্যা সমাধানের। আর এই আলোচনার সময় খড়গপুর টাউন থানার আইসি উপস্থিত ছিলেন। এই ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পার্থ ঘোষ জানিয়েছেন সমস্যার সমাধান হয়ে গিয়েছে।। আর যারা ভাঙচুর করেছে তারা পরীক্ষার্থী নয়। কয়েকজন প্রাক্তন ছাত্র এই কান্ড ঘটিয়েছে। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন “শুক্রবার অকৃতকার্য পড়ুয়াদের বলা হয়েছিল প্রত্যেককে একটি করে আবেদন পত্র জমা দেওয়ার জন্য।

আর বলা হয়েছিল এই আবেদন পত্র বিদ্যালয়ের অফিস রুমে জমা দিতে। একবারও বলা হয় নি আবেদন পত্র জমা দেওয়ার সময় আমি থাকব। বরং বলা হয়েছিল আমি থাকব না।” তিনি জানিয়েছেন এই আবেদন পত্রগুলি নিয়ে সোমবার মেদিনীপুর শহরে উচ্চ মাধ্যমিক সংসদের আঞ্চলিক কার্যালয়ে যাবেন। এই বিদ্যালয়ে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১৩২জন।

অকৃতকার্য হয়েছে ৩২ জন। অপরদিকে এইদিন শহরের পশ্চিম প্রান্তে শেষ মালঞ্চ এলাকায় সেনচকে রাস্তা অবরোধ করে খড়গপুর প্রিয়নাথ রায় বিদ্যানিকেতনের অকৃতকার্য ছাত্র ও ছাত্রীরা। যদিও আধ ঘন্টা পরে খড়গপুর টাউন থানার পুলিশের হস্তক্ষেপে অবরোধ উঠে যায়। তারপর ক্ষুব্ধ পড়ুয়ারা বিদ্যালয়ের গেটের সামনে অবরোধ অবস্থান শুরু করে। তাদের দাবি পাশ করাতে হবে। এই বিদ্যালয়ে মোট ৫২ জন পরীক্ষার্থী ছিল।

পাশ করেছে ১৪ জন। বাকি ৩৮ জন অকৃতকার্য হয়েছে। আবার এই অকৃতকার্যদের মধ্যে কলা বিভাগের ফার্স্ট গার্ল মৌসুমী মাহাতো রয়েছে। ফলে ক্ষোভ আরও চরমে উঠেছে। পাশ করা ছাত্র সোমেন রানাও এই প্রকাশিত ফলাফলে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন ” সবাই ফেল করার মত নয়। আরও কয়েকজন পাশ করার মত রয়েছে।” এই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কৌশিক দাশগুপ্ত সাফ জানিয়েছেন এই ফলাফলের দায় বিদ্যালয়ের নয়।

আর এটা কোনও বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। রাজ্যের অনেক স্কুলে এইধরনের বিক্ষোভ হচ্ছে। এই বিক্ষোভ পদ্ধতিগত ত্রুটির ফল।” তিনি জানিয়েছেন সোমবার উচ্চ মাধ্যমিক সংসদের আঞ্চলিক কার্যালয়ে যাবেন। তারপর অবস্থা বুঝে পদক্ষেপ করা হবে বলে তিনি জানালেন। পাশাপাশি তিনি বলেন ” আমরা চাই সব ছাত্রছাত্রী পাশ করুক।” অপরদিকে শুক্রবার এই একই দাবিতে রাত বারোটা পর্যন্ত ঘেরাও হয়ে ছিলেন খড়গপুর শহরের দক্ষিণ প্রান্তের সিলভার জুবিলী উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক।

শুধু তাই নয় এইদিন ফের একই দাবিতে বিকাল থেকে এই বিদ্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। অকৃতকার্য পড়ুয়ারা বিদ্যালয়ের গেটের সামনে অবস্থান শুরু করেছে।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!