Thursday, September 23, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরব্রেকিং: চোর সন্দেহে কিশোরকে খুন করে পুঁতে দেওয়ার অভিযোগ কারখানার নিরাপত্তারক্ষীদের বিরুদ্ধে,উত্তেজনা...

ব্রেকিং: চোর সন্দেহে কিশোরকে খুন করে পুঁতে দেওয়ার অভিযোগ কারখানার নিরাপত্তারক্ষীদের বিরুদ্ধে,উত্তেজনা খড়গপুরে

- Advertisement -

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: গুলিবিদ্ধ এক কিশোরের মৃতদেহ মাটি খুঁড়ে বের করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠালো পুলিশ। ঘটনার জেরে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে খড়গপুর গ্ৰামীণ থানার কলাইকুন্ডা গ্ৰাম পঞ্চায়েতের কাঁটাপাল গ্ৰামে।

পুলিশ জানিয়েছে মৃত কিশোরের নাম কাশীনাথ ওরফে পটল দোলুই (১৬)। শুক্রবার বিকালে গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে এই কিশোরের। মৃত কিশোরের পরিবার সহ গোটা গ্ৰামের অভিযোগ বন্ধ হয়ে যাওয়া রামস্বরূপ কারখানার নিরাপত্তা রক্ষীদের ছোঁড়া গুলিতে এই কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। আর রামু দোলই নামে এক যুবক জখম হয়েছে।

- Advertisement -

জানা গিয়েছে এই যুবক বর্তমানে মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। কোনও অভিযোগ দায়ের হয় নি। আপাতত একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা দায়ের করে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। জানা গিয়েছে শুক্রবার বিকালে গরু আনার জন্য পটল বাড়ি লাগোয়া একটি কারখানার ফাঁকা জমিতে যায়।

কিন্তু সেখানে পৌঁছে দেখে গরুটি পাশে বন্ধ হয়ে যাওয়া রামস্বরূপ কারখানার ভেতরে ঢুকে গিয়েছে। তখন সে গরুটিকে নিয়ে আসার জন্য বন্ধ হয়ে যাওয়া রামস্বরূপ কারখানার ভাঙ্গা পাঁচিলের ফাঁক গলে ঢুকে পড়ে। তার কিছুক্ষণ পর কয়েকজন গ্ৰামের যুবক গুলিবিদ্ধ পটলকে ধরাধরি করে বাড়িতে নিয়ে আসেন। তারপর স্থানীয় এক চিকিৎসককে ডেকে আনা হয়। তিনি গুলিবিদ্ধ কিশোরকে মৃত বলে ঘোষণা করে ফিরে যান।

তারপর পরিবারের সদস্যরা গ্ৰামবাসীদের সাহায্যে ছোটো ছেলের গুলিবিদ্ধ মৃতদেহটি বাড়ি লাগোয়া একটি কারখানার ফাঁকা জমিতে নিয়ে গিয়ে মাটিতে পুঁতে দেন। পুরো ঘটনাটি সন্ধ্যা পর্যন্ত চাপা ছিল। কিন্তু মোড় ঘুরে যায় রাতের দিকে। ঘটনাটি জানাজানি হয়ে যায়। খবর পেয়ে রাতে খড়গপুর গ্ৰামীণ থানার ওসি আসিফ সেনির নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী গ্ৰামে পৌঁছায়।

কিন্তু রাত হয়ে যাওয়ায় ওই জলকাদা ভেঙে অন্ধকারে মৃতদেহ উদ্ধার না করে পুলিশ ফিরে যায়। শনিবার দুপুরে খড়গপুর গ্ৰামীণ থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। মাটির নিচ থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে। সেইসময় উপস্থিত ছিলেন খড়গপুর এক নম্বর ব্লকের বিডিও দেবদত্ত চক্রবর্তী। এদিকে গোটা ঘটনার জন্য সকলে বন্ধ হয়ে যাওয়া রামস্বরূপ কারখানার নিরাপত্তা রক্ষীদের দায়ী করেছেন। মৃতের দাদা নিমাই দোলইয়ের অভিযোগ রামস্বরূপ কারখানার নিরাপত্তা রক্ষীদের ছোঁড়া গুলিতে ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে।

তাঁর ভাই গরু আনার জন্য ওই কারখানার ভেতরে ঢুকে পড়ে। তখনই ভাইকে গুলি করা হয়েছে বলে তিনি জানালেন। তবে এতবড় ঘটনার পর পুলিশকে না জানিয়ে মৃতদেহ মাটি চাপা কেন দেওয়া হয় সেই প্রশ্নের উত্তরে বলেন ” সেইসময় মাথা কাজ করছিল না। তাই গ্ৰামের রীতি মেনে মৃত ভাইয়ের দেহ মাটির নিচে চাপা দেওয়া হয়েছে।” আর মৃতের মা মল্লিকা দোলুই শুক্রবার রাতে জানিয়েছিলেন তাঁর ছোটো ছেলেকে রামস্বরূপ কারখানার নিরাপত্তা রক্ষীরা গুলি করে মেরে মাটির নিচে পুঁতে দিয়েছে।

কিন্তু শনিবার তিনি সুর পাল্টে বলেন রামস্বরূপ কারখানার নিরাপত্তা রক্ষীরা গুলি করে মেরে ফেলেছে। কিন্তু ছেলের মৃতদেহ তাঁরাই মাটির নিচে পুঁতে দিয়েছেন। তিনি চান খুনি রামস্বরূপ কারখানার নিরাপত্তা রক্ষীদের কঠোর শাস্তি। তবে শুক্রবার রাত থেকে শনিবার দিনভর এই ঘটনা নিয়ে গোটা কাঁটাপাল গ্ৰাম সরগরম রইল। শুক্রবার গোটা গ্ৰামের বাসিন্দারা রাত জাগল।

অথচ মৃত কিশোরের বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে এই গ্ৰামের তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্য শ্রাবন্তী মুদি জানালেন ” এই ঘটনার ব্যাপারে আমার কিছু জানা নেই। কারন আমাকে কেউ কিছু জানায় নি। তাই কিছু বলতে পারব না।” এই গ্ৰামের লাগোয়া রামস্বরূপ লৌহ কারখানা প্রায় বারো বছর ধরে বন্ধ হয়ে পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে। সেইসময় থেকেই কারখানার সীমান্ত পাঁচিল টপকে নানারকমের মূল্যবান সম্পদ চুরি হওয়া শুরু হয়। বিশেষ করে সন্ধ্যার পর থেকে এই চুরির ঘটনা ঘটে।

বিশাল জায়গা জুড়ে থাকা এই কারখানার নিরাপত্তা রক্ষীরা এই চুরি আটকাতে রীতিমতো নাজেহাল হয়ে যান। আর এই চুরির ঘটনায় কারখানার লাগোয়া কয়েকটি গ্ৰামের কয়েকজন যুবক জড়িত রয়েছেন বলে অভিযোগ। তারমধ্যে এই গ্ৰামের কয়েকজন যুবক জড়িত রয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। এমনকি বৃহস্পতিবার রাতে রামস্বরূপ কারখানার নিরাপত্তা রক্ষীদের সাথে একপ্রস্থ খন্ড যুদ্ধ হয় এই গ্ৰামের কয়েকজনের সঙ্গে। অভিযোগ এই যুবকেরা রাতের অন্ধকারে রামস্বরূপ কারখানার ভেতরে ঢুকেছিল চুরির উদ্দেশ্যে।

আর শুক্রবার বিকালে কয়েকজন যুবকের সাথে এই কিশোরকে ঢুকতে দেখে ফেলে নিরাপত্তা রক্ষীরা। তারপরেই এই ঘটনা। অনুমান চোর সন্দেহে নিরাপত্তা রক্ষীরা গুলি চালায়। আর তাতেই মৃত্যু হয় এই কিশোরের। এই ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খড়গপুর) রানা মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন একটি ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। সবদিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

 

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!