Sunday, September 26, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরডেবরায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নৌকা করে চলছে পারাপার,সেতুর দাবিতে সরব এলাকাবাসী

ডেবরায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নৌকা করে চলছে পারাপার,সেতুর দাবিতে সরব এলাকাবাসী

- Advertisement -

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: কংসাবতী নদীর জল বেড়েছে সম্প্রতি টানা বৃষ্টিতে। সরিয়ে নেওয়া হয়েছে অস্থায়ী সাঁকোগুলি। ফলে এখন নদী পারাপার করার জন্য একমাত্র নৌকাই ভরসা। আর এই নৌকার ভরসায় এখন ডেবরা ব্লকের পাঁচটি গ্ৰাম পঞ্চায়েতের কয়েক হাজার মানুষকে যাতায়াত করতে হচ্ছে। বিপদের ঝুঁকি তো রয়েছেই।

তারসাথে রাত আটটার পর কোনও ঘাটে নৌকা পাওয়া যায় না। ফলে রাত বিরাতে প্রয়োজন হলে মানুষজনকে চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়। এই ডেবরা ব্লকে পাঁচটি নদী ঘাট রয়েছে। যেখান দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ যাতায়াত করেন। লোয়াদায় নদীর উপর তৈরি হওয়া সড়ক সেতুটি আংশিক খুলে দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -

ফলে সেখান দিয়ে অতি প্রয়োজনীয় কিছু যানবাহন চলাচল করছে। কিন্তু মূল যাতায়াতের জন্য এখনও সেই নৌকা ভরসা। লোয়াদা নদী ঘাট পার হয়ে গোলগ্ৰাম গ্ৰাম পঞ্চায়েতের নন্দবাড়ি হয়ে গোলগ্ৰাম ও মলিহাটি পর্যন্ত সড়ক পথে পৌঁছানো যায়। তারপর আবার এই মলিহাটি থেকে কিছুটা এগিয়ে বালিপোতা ঘাট। সেখান থেকে নদী পার হয়ে পৌঁছানো যায় ঘাটাল মহকুমার দাসপুর থানার সামাটে।

এই বালিপোতা ঘাট পারাপারের জন্য সেই নৌকা সম্বল। এছাড়া ডেবরা ব্লকে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আর একটি নদী ঘাট হল সত্যপুর গ্ৰাম পঞ্চায়েতের ট্যাবাগেড়িয়া নদী ঘাট। এখান থেকে নদী পার হয়ে ভরতপুর গ্ৰাম পঞ্চায়েতের মকারিমপুর পর্যন্ত পৌঁছে যাওয়া যায়। এই ঘাটেও বর্তমানে নদী পারাপার করার জন্য ভরসা এখন নৌকা।

নদীর জল বেড়ে যাওয়ায় অস্থায়ী বাঁশের সাঁকো সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ফলে নৌকাতেই এখন নদী পারাপার করতে হচ্ছে। এছাড়া রয়েছে ভবানীপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সিঙ্গেরগড় নদী ঘাট। এখান থেকে নদী পার হয়ে যাওয়া যায় দাসপুর থানার দুবরাজপুর এলাকায়। এখানেও নৌকা ভরসা।

এছাড়া রয়েছে লোয়াদা ও ট্যাবাগেড়িয়ার মাঝে জগন্নাথপুর ঘাট। এখান থেকে নদী পার হয়ে যাওয়া যায় সত্যপুর গ্ৰাম পঞ্চায়েতের মাড়াতলা পর্যন্ত। এখানেও আপাতত নদী পারাপার করার জন্য নৌকা ভরসা। এই ঘাটগুলি দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ যাতায়াত করেন। শুধু যে ডেবরা থানার পাঁচটি গ্ৰাম পঞ্চায়েতের মানুষ যাতায়াত করেন তা নয়।

নদীর অপর পারের ঘাটাল মহকুমার দাসপুর থানার বিস্তীর্ণ এলাকার মানুষজনকেও ডেবরায় কোনও কাজে আসার জন্য এই নদী ঘাটগুলি পার হতে হয়। নদী ঘাট গুলিতে পাকা সেতুর দাবি অনেকদিনের। তারমধ্যে লোয়াদা সেতু আংশিক খুলে দেওয়ায় সমস্যার সমাধান কিছুটা হয়েছে।

কিন্তু বাকি চারটি ঘাট পাকা সেতুর দাবি আজও পূরণ হয় নি। এই ব্যাপারে দ্বীপান্তর মুক্তি সংগ্রাম কমিটির সম্পাদক গৌতম মাজি জানিয়েছেন ট্যাবাগেড়ায়াতে নদীর উপর একটি পাকা সড়ক সেতুর খুবই প্রয়োজন। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যে ডেবরার বিধায়ক তথা রাজ্যের কারিগরি শিক্ষা দফতরের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী হুমায়ূন কবিরের সাথে আলোচনা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

আর মন্ত্রী হুমায়ূন কবির জানিয়েছেন ট্যাবাগেড়িয়াতে একটি সড়ক সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কারন এই সেতুটি নির্মাণ করা খুবই প্রয়োজন। আর এই সেতুর দাবি দীর্ঘদিনের। তবে আপাতত পুজো পর্যন্ত এই নদী পারাপার করার জন্য নৌকার কোনও বিকল্প নেই। নৌকাই ভরসা।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!