Saturday, August 13, 2022
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরবেটা কোথায়, নাম না করে খড়গপুরের প্রাক্তন বিধায়ক প্রদীপ সরকারকে বিঁধলেন দিলীপ...
Advertisement

বেটা কোথায়, নাম না করে খড়গপুরের প্রাক্তন বিধায়ক প্রদীপ সরকারকে বিঁধলেন দিলীপ ঘোষ

Advertisement

Advertisement

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: দিল্লী থেকে ট্রেনে খড়গপুরে পৌঁছেই খড়গপুর পুরসভার প্রশাসক তথা প্রাক্তন বিধায়ক প্রদীপ সরকারের নাম উল্লেখ না করে তীব্র কটাক্ষ ছুঁড়ে দিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ। তিনি বললেন ” কোথায় গেল সেই বেটা। বেটাকে তো খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। বেটার খোঁজ আমরাও করছি।

- Advertisement -
Advertisement
- Advertisement -

এই কষ্টের সময় মানুষ যখন ভেসে যাচ্ছেন,মায়েরা ভেসে যাচ্ছেন তখন বেটাকে তো খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।” তারপরেই তাঁর কটাক্ষ মিশ্রিত প্রশ্ন ” বেটাকে কি খুঁজতে হবে? বেটা কি ভেসে গেল?” যদিও এই দিলীপ ঘোষের এই কটাক্ষের জবাবে খড়গপুর পুরসভার প্রশাসক তথা প্রাক্তন বিধায়ক প্রদীপ সরকার বলেছেন ” বেটা কোথায় থাকে না থাকে সেটা খড়গপুরের মানুষ জানে।

সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মানুষের সঙ্গে থাকি।” তারপরেই পাল্টা কটাক্ষ ছুঁড়ে দিয়ে প্রদীপ বলেন ” দিলীপ ঘোষের নিজের বিধায়কের উপর আর ভরসা নেই। সেইজন্য বেটাকে খুঁজছেন। আমি এরজন্য দিলীপ ঘোষের কাছে কৃতজ্ঞ। আমার ভালো লাগছে তিনি আমাকে খুঁজছেন।” শনিবার বেলা এগারোটা নাগাদ দিল্লী থেকে ট্রেনে দিলীপ ঘোষ খড়গপুর শহরের হিজলি রেল স্টেশনে পৌঁছান।

তারপরেই নানা প্রশ্নের উত্তর দেন। তারমধ্যে তাঁর কাছে সম্প্রতি টানা বৃষ্টিতে খড়গপুর শহরে জল জমে যাওয়া ও বিজেপির তারকা বিধায়ক হিরণকে ঘিরে বিক্ষোভের বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়। তখনই তিনি খড়গপুর পুরসভার প্রশাসক তথা প্রাক্তন বিধায়ক প্রদীপ সরকারের বিরুদ্ধে এই কটাক্ষ করেন।

পাশাপাশি তিনি বলেন ” আমাদের বিধায়ক কি করবেন? আমিও তো বিধায়ক ছিলাম। যাঁরা পুরসভা চালিয়েছেন পাঁচ বছর তাঁদেরকেই তো জবাব দিতে হবে। আমাদের কাউন্সিলরদের কানপট্টিতে বন্দুক ঠেকিয়ে জয়েন করিয়েছিলেন তাঁরা কোথায়?” তারপরেই তিনি এই কটাক্ষ করেন।

প্রসঙ্গত গত ২০১৯ সালে খড়গপুর শহরে বিধানসভা উপ নির্বাচনে সেইসময়ে তৃণমূল প্রার্থী প্রদীপ সরকার শ্লোগান তুলেছিলেন ” নেতা নয়। বেটা চাই।” সেই উপ নির্বাচনে তিনি জয়ী হয়েছিলেন। যদিও পরে বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির তারকা প্রার্থী হিরণের কাছে তিনি পরাজিত হয়েছেন।

এদিকে খড়গপুর শহরের পরিবর্তনের লক্ষ্যে সাংসদ হিসাবে তিনি ও বিধায়ক হিসাবে হিরণ সম্মিলিতভাবে কাজ করছেন সেটি উল্লেখ করেছেন।

Advertisement

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!