Sunday, September 19, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরজেলা কমিটির নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও, বামপন্থীদের দখল করা কার্যালয় উদ্ধারে ব্যর্থ সিপিএমের...

জেলা কমিটির নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও, বামপন্থীদের দখল করা কার্যালয় উদ্ধারে ব্যর্থ সিপিএমের এরিয়া কমিটির নেতারা

- Advertisement -

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: দুই মাস পার হয়ে গিয়েছে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত সিপিআইএমের জেলা কমিটির একটি নির্দেশ কার্যকর করতে পারল না খড়গপুর শহরের তিনটি এরিয়া কমিটির নেতারা। গত পাঁচ জুনে সিপিআইএমের জেলা কমিটির পক্ষ থেকে সম্পাদক তরুন রায়ের স্বাক্ষরিত একটি সার্কুলার পাঠানো হয় খড়গপুর শহরের দলের তিনটি এরিয়া কমিটির কাছে।

সেখানে স্পষ্ট উল্লেখ করা হয়েছে সিপিএম ত্যাগী আমরা বামপন্থী নামে সংগঠনের দখলে থাকা দলীয় কার্যালয়গুলি উদ্ধার করার জন্য। পাশাপাশি বলা হয়েছে এই সংগঠনের সাথে দলের কোনও স্তরের নেতা ও কর্মীরা যোগাযোগ রাখতে পারবেন না। আর সাধারন মানুষের মধ্যে ঘোষণা করতে হবে এই সংগঠনের সাথে দলের কোনও সম্পর্ক নেই।

- Advertisement -

সার্কুলারে পরিষ্কার বলা হয়েছে ” পার্টি অফিস ব্যবহার না করার জন্য যথাযথ সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা জরুরি।” অথচ এই সার্কুলার পাঠানোর পর দু মাস অতিক্রান্ত হয়েছে। কিন্তু দলের জেলা কমিটির নির্দেশ মেনে এই জরুরি সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্ৰহণ করতে পারল না সিপিআইএমের খড়গপুর শহরের তিনটি এরিয়া কমিটির নেতারা। বরং খড়গপুর শহরের সিপিআইএমের নেতারা আমরা বামপন্থী সংগঠনের নেতাদের শুভবুদ্ধি ও বিবেচনার উপর নির্ভর করে রয়েছেন।

যদিও নেতা নীতিগতভাবে স্বীকার করেন আমরা বামপন্থী সংগঠনের নেতা ও কর্মীদের সিপিআইএমের দলীয় কার্যালয়ে কাজ পরিচালনার কোনও অধিকার নেই। যদিও আমরা বামপন্থী সংগঠনের নেতাদের দাবি তাঁরা সিপিআইএমের কোনও দলীয় কার্যালয় দখল করে নেই। সেখান থেকে কোনও কাজও পরিচালিত হয় না। খড়গপুর শহরে সিপিআইএমের তিনটি এরিয়া কমিটি হল খড়গপুর পূর্ব এরিয়া কমিটি।

মূলত এটি পুরনো ইন্দা লোকাল কমিটি নিয়ে গঠিত। এছাড়া রেল এরিয়া কিছুটা রয়েছে। আর পশ্চিম এরিয়া কমিটি। এই এরিয়া কমিটি সবচেয়ে বড়। এই এরিয়া কমিটি তৎকালীন খড়িদা, রেল, মালঞ্চ ও নিমপুরা লোকাল কমিটির এলাকা জুড়ে রয়েছে। আর রয়েছে দক্ষিণ এরিয়া কমিটি। এই এরিয়া কমিটি গঠিত হয়েছে মূলত পুরনো প্রেমবাজার লোকাল কমিটির এলাকা নিয়ে।

এই তিনটি এরিয়া কমিটির মধ্যে পূর্ব এরিয়া কমিটিতে আমরা বামপন্থী সংগঠনের খুব বেশি প্রভাব নেই। দক্ষিণ এরিয়া কমিটিতে প্রভাব ও সাংগঠনিক শক্তি খানিকটা রয়েছে। কিন্তু সবচেয়ে বেশি প্রভাব ও সাংগঠনিক শক্তি রয়েছে পশ্চিম এরিয়া কমিটি এলাকায় আমরা বামপন্থী নামে সংগঠনের। এই এরিয়া কমিটির কার্যালয়ের বেশিরভাগ অংশ আমরা বামপন্থীদের দখলে রয়েছে।

এই কার্যালয়ে সমান্তরালভাবে আমরা বামপন্থী ও সিপিআইএমের সাংগঠনিক কাজ থেকে শুরু করে রাজনৈতিক ও সামাজিক সমস্ত কাজ পরিচালিত হচ্ছে। এই কার্যালয়ে সিপিআইএমের সদস্যদের তুলনায় আমরা বামপন্থীদের লোকজন বেশি যাতায়াত করেন। নিয়মিত বৈঠক হয়। এছাড়া এই এরিয়া কমিটির অন্তর্গত ওল্ড সেটেলমেন্ট কার্যালয়টি পুরোপুরি আমরা বামপন্থীদের দখলে রয়েছে।

শুধু তাই নয় সিপিআইএমের পশ্চিম এরিয়া কমিটির দুটি ওয়ার্ডের শাখা কমিটির সমস্ত সদস্য আমরা বামপন্থীদের সাথে যোগ দিয়েছেন। এই দুটি ওয়ার্ডে সিপিআইএমের কিছু নেই। বাকি দুটি এরিয়া কমিটির কার্যালয়ে আমরা বামপন্থী সংগঠনের কোনও নেতা বা কর্মী যান না। কোনও কাজও পরিচালিত হয় না। তবে দক্ষিণ এরিয়া কমিটির ঝাপেটাপুর শাখা কার্যালয় এখন আমরা বামপন্থীদের দখলে রয়েছে।

আর দখলে রয়েছে আরামবাটি শাখা কার্যালয়টি। আমরা বামপন্থীদের দখলে থাকা সিপিআইএমের এই কার্যালয়গুলি উদ্ধারের কথা বলেছে জেলা কমিটি। এই ব্যাপারে সিপিআইএমের জেলা কমিটির সদস্য সবুজ ঘোড়ই বলেছেন ” দল ছেড়ে দেওয়ার পর নীতিগতভাবে পার্টি অফিস আঁকড়ে থাকা ঠিক নয়। ছেড়ে চলে যাওয়া উচিত। আর এই কাজটি ওদের শুভবুদ্ধি ও বিবেচনার উপর ছেড়ে দেওয়া ভালো।

কারন ওদের নেতারাও পার্টির নিয়ম কানুন সম্পর্কে যথেষ্ট ওয়াকিবহাল।” যদিও বিষয়টি নিয়ে এরিয়া কমিটিগুলির নেতাদের সঙ্গে কথা বলা হবে বলে তিনি জানালেন। অপরদিকে আমরা বামপন্থীর খড়গপুর শহরের আহ্বায়ক অনিল দাস বলেছেন ” আমরা সিপিআইএমের কোনও দলীয় কার্যালয় দখল করে নেই। যে সমস্ত কার্যালয় থেকে কাজকর্ম পরিচালিত হয় সেগুলি একটিও পার্টি অফিস নয়।

আর আমরা সিপিআইএমের সমর্থক, দরদী হিসাবে রয়েছি। কারন আমরা বিশ্বাস করি ভারতবর্ষে বিপ্লব এই দল করবে। এই দলের চেয়ে সর্বশ্রেষ্ঠ দল আর একটিও নেই।” তবে জেলা কমিটি যাই নির্দেশ দিক না কেন আমরা বামপন্থীদের উচ্ছেদ করার মত সাংগঠনিক শক্তি ও লোকবল এই মুহূর্তে খড়গপুর শহরে সিপিআইএমের নেই।

বিশেষ করে পশ্চিম এরিয়া কমিটিতে বেশিরভাগ শাখা এলাকায় সিপিআইএমের কার্যত কোনও অস্তিত্ব নেই। একমাত্র নিমপুরা এলাকায় সিপিআইএমের শক্তি অনেকটাই রয়েছে। এছাড়া আর কোথাও নেই। ফলে আমরা বামপন্থীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ক্ষমতা এই এরিয়া কমিটির নেতাদের কার্যত নেই।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!