Sunday, September 26, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরসবংয়ের দশগ্রামে রমরমিয়ে চলছে চোলাইয়ের কারবার,প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন?

সবংয়ের দশগ্রামে রমরমিয়ে চলছে চোলাইয়ের কারবার,প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন?

- Advertisement -

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: পুলিস-প্রশাসন-আবগারি দফতর-পঞ্চায়েত। আছে সবই। সকলের চোখেই সামনেই রমরমিয়ে চলছে চোলাইয়ের কারবার। সবং ব্লকের দশগ্রাম অঞ্চলের হরেকৃষ্ণ বুথ এলাকার মানুষ বলছেন, বারংবার আবগারি দপ্তরে অভিযোগ জানানোর পরেও চোখ বন্ধ রেখছে আবগারি দপ্তর। আর তাই বন্ধ হয়েও হয় না চোলাইয়ের ঠেক।

মেরেকেটে ৫০ মিটার। তারমধ্যেই ৪টি চোলাই ঠেক। সন্ধে নামলেই এলাকায় বাতাসে ভাসে ঝাঁঝাঁলো গন্ধ। আর প্রতিদিন ভোররাতে প্লাস্টিক ও বস্তাবন্দি হয়ে ঠেকে ঢুকে পড়ে চোলাইয়ের পাউচ ও শিশি। ঠেক থেকেই খদ্দেরদের হাতে পৌছে যায় চোলাই। কেউ আবার ঠেকে বসেই খাওয়া শুরু করে দেয়। আর গোটা কারবারটাই রমরমিয়ে চলে একেবারে পুলিস প্রশাসনের নাকের ডগায়। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে,হরেকৃষ্ণ বুথ এলাকায় কয়েকবছর ধরে রমরমিয়ে চলছে চোলাই মদের কারবার। এলাকার কয়েজন অসাধু ব্যক্তি চোলাই মদের ঠেক চালাচ্ছে। গত দুই বছর আগে স্থানীয় যুবকদের প্রচেষ্টায় বন্ধ করা গেলেও। এখন রমরমিয়ে চলছে।

- Advertisement -

এলাকার মহিলাদের অভিযোগ,এই করোনা পরিস্থিতিতে এলাকার গরীব মানুষেরা দিনমজুর খাটার পরে বাড়ি ফিরে চলে আসে এইসব ঠেকে। ফলে সংসারে আর্থিক সংকট বাড়ছে। যার জেরে প্রতিদিনই মদ খাওয়া নিয়ে সংসারে অশান্তি ঘটছে। তবে শুধু যে স্থানীয়রা এইসব ঠেকে ভিড় করছিলেন তা নয়। চোলাই বিক্রির খবর ছড়িয়ে পড়তেই। যত দিন যাচ্ছে ততই বাড়ছিল বাইরের লোকজনের আনাগোনা।

স্থানীয়রা সতর্ক করলেও সংযত হননি চোলাইয়ের কারবারিরা। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, সমস্যার বিষয়ে তাঁরা একবার আফগানি দপ্তরকে জানিয়েছেন। কিন্তু, আবগারি দপ্তর পক্ষ থেকেও প্রয়োজনীয় সাহায্য মেলেনি। প্রতিবাদ করতে গেলে মিলছে অশ্লীল ভাষা,এমনকি মারধরের হুমকিও দেওয়া হয়। রাজ্যে বিষ মদের ছোবলে প্রাণ যাচ্ছে অনেকের। কবে ভাঙবে এই চক্র? প্রশ্ন আম জনতার।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!