Sunday, September 19, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরখড়গপুরে রেল কোয়ার্টার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা দুর্নীতির আখরা ভাঙ্গার সিদ্ধান্ত...

খড়গপুরে রেল কোয়ার্টার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা দুর্নীতির আখরা ভাঙ্গার সিদ্ধান্ত রেল কর্তৃপক্ষর

- Advertisement -

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: রেল কোয়ার্টার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা দুর্নীতির আখরা ভাঙ্গার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। এবারে খড়গপুর শহরের রেলের খাতায় সমস্ত ফাঁকা কোয়ার্টারগুলি সিল করে দিয়ে জল ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

মঙ্গলবার এই মর্মে দক্ষিণ পূর্ব রেলের খড়গপুর ডিভিশনের ডিআরএম মনোরঞ্জন প্রধান একটি নির্দেশিকা জারি করেছেন। সেখানে স্পষ্ট উল্লেখ করা হয়েছে রেলের অধীনে যত ফাঁকা কোয়ার্টার রয়েছে সেগুলির তালিকা তৈরি করে অবিলম্বে বন্ধ করে দিতে হবে। তারসাথে এই সমস্ত কোয়ার্টারগুলির বিদ্যুৎ ও জলের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিতে হবে।

- Advertisement -

পরে যখন আবার বৈধভাবে কোনও রেলকর্মী এই কোয়ার্টারে বসবাস করবেন তখন ফের খুলে দেওয়া হবে। তারসাথে জল ও বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হবে। ডিআরএমের এই নির্দেশিকায় সর্বত্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। যদিও রেল কর্তৃপক্ষের এই উদ্যোগের পেছনে খড়গপুর শহরে আগামী পুর নির্বাচনের রাজনীতি কাজ করছে বলে তৃণমূলের ধারনা। তবে বিজেপি রেলের এই উদ্যোগের পেছনে কোনও রাজনৈতিক উদ্দেশ্য কাজ করছে বলে মনে করছে না।

এই মুহূর্তে রেলনগরী খড়গপুর শহরে সাতটি আইওডবলু আধিকারিকের অধীনে কয়েক শো রেল কোয়ার্টার রয়েছে। শহরের পশ্চিম প্রান্তে নিমপুরা থেকে শুরু করে মথুরাকাটি, নিউ সেটেলমেন্ট, ওল্ড সেটেলমেন্ট, সাউথ সাইড, ডেভেলপমেন্ট, নিউ ডেভেলপমেন্ট, ট্রাফিক, নিউ ট্রাফিক সহ আরও বেশ কিছু এলাকায় রেলের কোয়ার্টার রয়েছে। মূলত রেলকর্মী ও তাঁদের পরিবারের বসবাসের জন্য এই কোয়ার্টারগুলি বরাদ্দ করা হয়। আর কোনও রেলকর্মী বদলী হয়ে গেলে কিংবা অবসর গ্রহণ করলে নিয়ম অনুযায়ী কোয়ার্টারগুলি ছেড়ে দিয়ে রেল কর্তৃপক্ষের হাতে দায়িত্ব তুলে দিতে হয়।

আর এই জায়গাতেই যত বেনিয়ম। অভিযোগ একাধিক। তারমধ্যে অন্যতম একটি হল কোয়ার্টার খালি হয়ে যাওয়ার পর সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে রেল বহির্ভূত লোকজন বসবাস করতে শুরু করেন মাসিক ভাড়ার বিনিময়ে। আর এই বেআইনি কাজে রেলের এক শ্রেণীর আধিকারিক সহ রাজনৈতিক নেতা ও দালালদের মধ্যে একটি অশুভ আঁতাত রয়েছে বলে অভিযোগ। এই চক্রের হাত ধরে গোটা খড়গপুর শহরে ফাঁকা রেল কোয়ার্টারগুলির হাজার হাজার টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন ভাবে হাত বদল হয়। এই হাত বদলের নানারকম কায়দা রয়েছে।

নিয়ম অনুযায়ী প্রতিটি রেলকর্মী এই কোয়ার্টার পাওয়ার অধিকারী। কিন্তু অনেক সময় একাংশ রেলকর্মী বরাদ্দকৃত কোয়ার্টারে বসবাস না করে আলাদা বাড়ি তৈরি করে কিংবা ভাড়া বাড়িতে বসবাস করেন। আর দালাল ধরে স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতাদের ম্যানেজ করে কোয়ার্টারটি ভাড়ায় দিয়ে দেন। আবার অনেক সময় একটি কোয়ার্টার খালি হয়ে যাওয়ার পর আগেই ঠিক করা রেল বহির্ভূত কোনও ব্যক্তির কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা অগ্ৰিম নিয়ে মাসিক ভাড়ার বিনিময়ে রেল আধিকারিকদের ম্যানেজ করে দালালরা ভাড়া দিয়ে দেন।

ফলে বেশিরভাগ সময় একটি কোয়ার্টার খুঁজতে গিয়ে রীতিমতো নাকাল হতে হয় বৈধ রেলকর্মীকে। শুধু তাই নয় অনেক সময় শুধুমাত্র দালালদের ধরে কাউকে না জানিয়ে দুষ্কৃতীরা ফাঁকা রেল কোয়ার্টারে আশ্রয় নিয়ে দিনের পর দিন কাটিয়ে দেয়। পরে কোনো অপরাধ করে পালিয়ে যায়। এমন উদাহরণ খড়গপুর শহরে বহু রয়েছে। এই অশুভ আঁতাত ভাঙ্গার জন্য মূলত রেল কর্তৃপক্ষ এই উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। এই সিদ্ধান্তে বেআইনি দখলে থাকা বহু রেল কোয়ার্টার খালি করে নিজেদের দখলে আনা যাবে বলে মনে করছেন রেলের আধিকারিকরা।

এই ব্যাপারে রেলের খড়গপুর ডিভিশনের সিনিয়র ডিসিএম তথা জনসংযোগ আধিকারিক গজরাজ সিং চরন জানালেন এই উদ্যোগ নতুন কিছু নয়। আগেও নেওয়া হয়েছে। আর রেল কর্তৃপক্ষ নিজেদের কোয়ার্টার দায়িত্বে রাখবে তার মধ্যে তো কোনও অন্যায় নেই। নিয়ম অনুযায়ী ফাঁকা কোয়ার্টারগুলি সিল করে জল ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে রেলের এই উদ্যোগের পেছনে রাজনীতি রয়েছে বলে জানালেন খড়গপুর পুরসভার প্রশাসকমন্ডলীর অন্যতম সদস্য তথা তেরো নম্বর ওয়ার্ডের বিদায়ী কাউন্সিলর ভেঙ্কট রামনা।

তিনি বলেন রেলের এই সিদ্ধান্ত স্বাগত। যদিও এই রেল কোয়ার্টার নিয়ে দুর্নীতি দীর্ঘদিন ধরে চলছে বলে তিনি জানালেন। পাশাপাশি বললেন রেলের আধিকারিকরা সবকিছুই জানেন। এমনকি এই দুর্নীতির মধ্যে রেলের আধিকারিকদের একাংশ দালালদের সাথে যুক্ত রয়েছেন বলে তাঁর অভিযোগ। তবে এর পেছনে রাজনীতি রয়েছে বলে তিনি মনে করেন। তিনি বলেন সামনেই খড়গপুরে পুর নির্বাচন। রেল কর্তৃপক্ষ কোয়ার্টার খালি করার অজুহাতে অবৈধ বসবাসকারীদের ভয় দেখিয়ে বিজেপির পক্ষে ভোট করানোর ধান্দায় রয়েছে।”

যদিও রেল এই কাজ করবে না বলে মনে করেন খড়গপুর পুরসভার ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের বিজেপি বিদায়ী কাউন্সিলর তথা কোঅর্ডিনেটর অনুশ্রী বেহেরা। তিনি বলেন ” তৃণমূল সবেতেই রাজনীতি খোঁজে। রেল নিজের কাজ করবে। ফাঁকা কোয়ার্টার সিল করে নিজেদের হেফাজতে নেবে। তারজন্য যদি কোনও অবৈধ বসবাসকারীকে সরিয়ে দিতে হয় সেটা রেল করবে। কিন্তু এর মধ্যে পুরসভা নির্বাচন কোথা থেকে আসছে মাথায় ঢুকছে না।”

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!