Thursday, September 23, 2021
Homeজেলাপশ্চিম মেদিনীপুরদীর্ঘ একযুগ পর ফের বন্যা সবংয়ে

দীর্ঘ একযুগ পর ফের বন্যা সবংয়ে

- Advertisement -

খড়গপুর ২৪×৭ ডিজিটাল: রেকর্ড পরিমাণ বৃষ্টির হাত ধরে রেকর্ড ভেঙ্গে গেল সবংয়ে। দীর্ঘ এক যুগ পরে ফের বন্যা সবংয়ে। টানা দু’দিনের বৃষ্টির জেরে নদী বেষ্টিত সবং ব্লকের ১৩টি গ্ৰাম পঞ্চায়েত এলাকা জলে ভাসছে।

তারসাথে পিংলা ব্লকের সবং বিধানসভা কেন্দ্রের অধীন তিনটি গ্ৰাম পঞ্চায়েত এলাকাও জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। কোথাও বাঁধ ভেঙে। আবার কোথাও নদীর জল উপচে এসে গ্ৰামের পর গ্ৰাম ভাসিয়েছে। এককথায় বুধবারের সকালে বারো বছর আগের ভয়াল বন্যার সেই স্মৃতি ফের ফিরে এসেছে সবংয়ে। কেলেঘাই, কপালেশ্বরী,বাঘুই ও চন্ডীয়া নদী সহ বিভিন্ন খাল এই সবংয়ের উপর দিয়ে বয়ে গিয়েছে। প্রবল বৃষ্টিতে মঙ্গলবার রাতে বাঁধ ভেঙেছে কেলেঘাই নদীর পাড়ে অবস্থিত সারতা গ্ৰাম পঞ্চায়েতের রামপুরা ও সালমারজালা এলাকায়।

- Advertisement -

আর বুধবার বিকালে এই নদীর পাড়ে পুরনো জমিদারি বাঁধ ভেঙেছে খড়িকা এলাকায়। আর ভাঙ্গা বাঁধ দিয়ে বিস্তীর্ণ এলাকায় হু হু করে জল ঢুকতে শুরু করেছে। এছাড়া কেলেঘাই নদীর পাড়ে ভেমুয়া গ্ৰাম পঞ্চায়েতের শ্যামসুন্দরপুর এলাকায় প্রাক্তন জমিদারি বাঁধ ভেঙেছে। এবারের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দেভোগ গ্ৰাম পঞ্চায়েতের উচিতপুর,

বসন্তপুর, দেভোগ, লখিয়া, বাদলপুর, নওগাঁ গ্ৰাম পঞ্চায়েতের জরুরা,মানিকারা,খুনসুনিয়া,বেলকি, নওগাঁ,বিষ্ণুপুর গ্ৰাম পঞ্চায়েতের মারকুন্ডাচক,লখিচক,কালিদহচড়া,নোনা মাধবচক,কুলগেরি,মোহাড় গ্ৰাম পঞ্চায়েতের দুবরাজপুর, কাঁটাখালি, নিমকি-মোহাড়,বলপাই, ৪ নম্বর দশগ্রাম অঞ্চলের কোলন্দা,বিলকুয়া,কপতিপুর,নানকার,দেহাটি সহ বিস্তীর্ণ এলাকা জলের তলায় চলে গিয়েছে।

এছাড়া সারতা গ্ৰাম পঞ্চায়েতের বিলকোটা, সরীষা, চাঁদাগোবরা সহ দশগ্ৰাম গ্ৰাম পঞ্চায়েতের কোলন্দা,কুপ্তিপুর,বিলকুয়া, রামচক,দশগ্ৰাম,রাউতারাবাড়ি এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি ভেমুয়া গ্ৰাম পঞ্চায়েতের রানিচক,আমদা, কেশবপুর ও লাউবার এলাকা প্লাবিত হয়েছে। সবমিলিয়ে গোটা সবং ব্লকের ২৩২টি মৌজার মধ্যে ২০০টি মৌজা জলের তলায় চলে গিয়েছে। তিনশোটি গ্ৰামের মধ্যে আড়াইশো গ্ৰাম প্লাবিত হয়েছে।

আর এই সব গ্ৰামগুলি কেলেঘাই, কপালেশ্বরী, বাঘুই ও চন্ডীয়া নদী লাগোয়া। এদিকে এই বন্যার জন্য এলাকার বাসিন্দারা দীর্ঘদিন ধরে নদী বাঁধগুলি রক্ষণাবেক্ষণ ও সংস্কার না করার জন্য ভঙ্গুর হয়ে যাওয়ায় এই বিপর্যয় নেমে এসেছে বলে জানালেন। তারসাথে কেলেঘাই কপালেশ্বরী বাঘাই ও চন্ডীয়া নদীতে জমে যাওয়া পলি না তোলাকেও দায়ি করেছেন। এই ব্যাপারে সবংয়ের বিধায়ক তথা রাজ্যের জলসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া জানিয়েছেন গোটা পরিস্থিতি মুখ্যমন্ত্রী থেকে শুরু করে মুখ্যসচিব ও জেলাশাসককে জানানো হয়েছে।

আর গোটা ব্লকের সবকয়টি অর্থাৎ তেরোটি গ্ৰাম পঞ্চায়েত প্রধানদের বলা হয়েছে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা ও হিসাব তৈরি করতে। তিনি বলেছেন ” গত দুদিনে প্রায় ৪০০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। যা কিনা গত ২৫ বছরে হয় নি।” অপরদিকে সবংয়ের বিডিও তুহিন শুভ্র মাহান্তি জানিয়েছেন ইতিমধ্যে দশ হাজার বন্যা কবলিত মানুষজনকে সরিয়ে বিভিন্ন ত্রাণ শিবিরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

বিভিন্ন স্কুল, অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে ও কয়েকটি ফ্লাড সেন্টারে ত্রাণ শিবির করা হয়েছে। এই শিবিরগুলিতে শুকনো খাবার দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে শিশুদের জন্য দুধের ব্যবস্থা করার। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন গোটা পরিস্থিতির উপর নজর রাখা হয়েছে।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

error: Content is protected !!